ভূমি দিবস উপলক্ষে আয়োজিত শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ বিক্ষোভে গুলি চালিয়ে নিরস্ত্র ১৭ ফিলিস্তিনি হত্যার ঘটনায় ইসরাইলের বিরুদ্ধে নিন্দা অব্যাহত রয়েছে। যদিও ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু এ ঘটনায় তার সেনাদের বাহবা দিয়েছেন। শুক্র ও শনিবার ইসরাইলি সেনাদের নির্বিচার গুলিতে দেড় হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন।


জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শনিবার ইসরাইল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যকার উত্তেজনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এক বিবৃতিতে বলেছে, এ ঘটনাই প্রমাণ করে, দুই পক্ষের মধ্যে আবারো আলোচনা শুরু অতি জরুরি হয়ে পড়েছে। একমাত্র আলোচনার মাধ্যমেই দুইপক্ষের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠার উপায় বের হবে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রধান অ্যালিস্টার বার্ট টুইটারে একই ধরনের উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘গাজার বর্তমান অবস্থা গভীর উদ্বেগ ও দুঃখের। ব্রিটেন সকল পক্ষকে শান্ত ও সংযত এবং সহিংসতা বন্ধে অবিলম্বে আলোচনা ও রাজনৈতিক প্রক্রিয়া শুরুর আহ্বান জানাচ্ছে।’

এ ছাড়া উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ইতালির পররাষ্ট্র মন্ত্রী অ্যাঞ্জেলিনো আলফানো। তিনিও চলমান সংকট সমাধান এবং ইসরাইলি ও ফিলিস্তিনিদের শান্তি ও নিরাপত্তার সঙ্গে বসবাসের ব্যবস্থা করতে উভয়পক্ষকে আলোচনা করে জরুরিভিত্তিতে সমাধান বের করার আহ্বান জানিয়েছেন।

ইরাকের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমেদ মাহকুব ফিলিস্তিনিদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে গুলি চালানোয় ইসরাইলের প্রতি নিন্দা জানিয়েছেন। তার সরকার ফিলিস্তিনিদের পাশে আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ইসরাইলের এই সহিংসতা আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন।

বসনিয়া-হার্জেগোভিনার রাজনীতিবিদ ইজেতবেগোভিক ইসরাইলি পদক্ষেপের নিন্দা জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরাইলি সহিংসতা বন্ধে জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

গাজাবাসীর ওপর ইসরাইলের ভয়ংকর হামলার নিন্দা জানিয়েছে মিসরের মুসলিম ব্রাদারহুড। দলটির মুখপাত্র তালাত ফাহমি বলেছেন, ফিলিস্তিনিরা যখন পবিত্র ভূমি রক্ষার জন্য লড়াই করছেন তখন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ইসরাইলি সহিংসতা মুখে নীরবতা পালন করছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান ইস্তাম্বুলে এক ভাষণে ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরাইলের হামলাকে অমানবিক উল্লেখ করে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

ব্রিটেনের বিরোধী দল লেবার পার্টির প্রধান জেরেমি কর্বিন ইসরাইলি সেনাদের হামলাকে ‘ভয়ংকর’ বলে উল্লেখ করেছেন। এ ব্যাপারে ব্রিটিশ সরকারকে কড়া প্রতিবাদ জানানোরও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

জর্ডান সরকার এক বিবৃতিতে বলেছে, ইসরাইলের এই হামলা ফিলিস্তিনিদের অধিকার আদায়ের লঙ্ঘন এবং অতিমাত্রায় বলপ্রয়োগ।

এর আগে শুক্রবার কাতার ইসরাইলি হামলার নিন্দা জানিয়েছে। আর কুয়েত জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠকের আহ্বান জানায়। এ ছাড়া ইরান নিরস্ত্র ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরাইলি হামলার তীব্র নিন্দা জানায়।

অন্যদিকে, শনিবার জাতিসংঘের এক বৈঠকে সংস্থাটির মহসচিব অ্যান্টোনিয়ো গুতেরেস এ ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়া নতুন করে শুরু করার কথা বলেছেন। খবর-আলজাজিরা, আনাদলু, প্রেসটিভি।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.