টানা বৃষ্টির অজুহাতে সম্প্রতি রাজধানীর মাছ ও সবজির বাজারে বেশ চড়াভাব বিরাজ করছে। পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও ৪০ টাকার নিচে পাওয়া যাচ্ছে না কোনো সবজি। তবে আলুর দাম রয়েছে ১৬ থেকে ২০ টাকার মধ্যে। রাজধানীর রামপুরা ও হাতিরপুল বাজার ঘুরে শুক্রবার এ চিত্র দেখা গেছে।

মাছ-সবজির বাজারে আগুন

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, করলা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, পটল বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়, বেগুন প্রতি কেজি ৬০, ছোট বেগুন প্রতি কেজি ৪০ ও কালো বেগুন ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, শিম ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, ধুন্দল বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, বরবটি ৬০, ঢেঁড়স ৪০, মূলা ৪০-৫০, মিষ্টি আলু ৪০ টাকা, কাঁচা কলা প্রতি হালি ২৫ টাকা, পেঁপে ৫০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে মান ভেদে আলু বিক্রি হচ্ছে ১৬ টাকা থেকে ২০ টাকায়। সালাদের উপকরণ শশা মান ভেদে ৩০ থেকে ৪০ টাকা, লেটুস পাতা ২৫ টাকা আটি, লেবু হালি ২০ টাকা, কাঁচা মরিচ প্রতি কেজি ৬০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বৃষ্টির প্রভাব পড়েনি শাকের বাজারে। পাট শাক প্রতি আটি বিক্রি হচ্ছে ৫ টাকায়, লালশাক প্রতি আঁটি ৫ থেকে ৮ টাকা, কলমি শাক ৫ টাকা আঁটি, পুঁইশাক আঁটি ২০ টাকা এবং লাউ শাক আঁটি ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজারেও বাড়তি দাম লক্ষ্য করা গেছে। প্রতি কেজি তেলাপিয়া, পাঙ্গাস বা সিলভারের মতো মাছ ১৫০ টাকা থেকে ১৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আর দেশি কই, বোয়াল, কাজলী বা টেংরা কিনতে হলে গুণতে হবে ৪০০ টাকা থেকে ৫৫০ টাকা, বড়-মাঝারি রুই, কাতল বা মৃগেল ২৪০ টাকা থেকে ৩৫০ টাকা পর্যন্ত দামে বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া বাজারে ৬০০ থেকে ৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের হালি আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার টাকা।

তবে মাংসের বাজারে তেমন পরিবর্তন আসেনি। প্রতি কেজি গরুর মাংস এখনও ৪৫০ টাকা থেকে মানভেদে ৫২০ টাকায় পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া খাশির মাংস ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা এবং ফার্মের মুরগি ১৫০ থেকে ১৫৫ টাকা কেজি, ব্রয়লার প্রতি কেজি ১৮০ টাকা ও পাকিস্তানি কক প্রতি হালি ৮০০ থেকে ১২ শত টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.