ভারতের সঙ্গে দেশের স্বার্থবিরোধী কোনো চুক্তি হলে কর্মসূচিতে যাওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত বিএনপি। একই দেশের চলমান প্রতিস্থিতিতে সরকার কর্মকাণ্ড নিয়ে বৈঠকে ক্ষোভ প্রকাশ করে জনগুরুত্ব ইস্যুতে আসতে আসতে কর্মসূচির যাওয়ার বিষয়ে আালোচনা হয়। 

স্বার্থবিরোধী চুক্তি হলে কর্মসূচিতে যাবে বিএনপি

তবে এখনই কোনো কঠোর কর্মসূচি নয়, আগামী এক মাসের মধ্যে দলকে সাংগঠনিকভাবে গুছিয়ে তারপর সক্রিয় আন্দোলনে দিকে যাওয়া মতামত উঠে এসেছে। বৈঠক সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

রোববার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আলোচনায় এসব নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে এখনো তা চূড়ান্ত করা হয়নি। 
বৈঠকে উপস্থিত এক নেতা জানান, আমরা চলমান রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে কথা বলেছি। এখানে অনেক কিছুই উঠে এসেছে। ভারতের সঙ্গে নিরাপত্তার চুক্তি কথা বলা হচ্ছে। এটা শুভলক্ষণ নয়। তাই আমরা নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছি দেশের স্বার্থবিরোধী কোনো চুক্তি হলে জনগণকে সঙ্গে কর্মসূচিতে যাওয়ার ছাড়া আর কোনো পথ খোলা নেই।

তিনি বলেন, ‘কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে ফলাফলে বৈঠকে সন্তুষ্টি প্রকাশ করা হয়ছে। তবে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিপুল ভোটের ব্যবধান আমাদের প্রার্থী মেয়র নির্বাচিত হতেন। এখানে নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করতে ব্যর্থ হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এখনই কোনো সক্রিয় কর্মসূচিতে যাওয়ার ব্যাপারে কোনো পরিকল্পনা নেই। আগামী এক মাসে দলকে সাংগঠনিকভাবে আরো গুছিয়ে তারপর আন্দোলেন দিকে যাব।’ বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, দলের নেতাকর্মীদের প্রতি যেভাবে নির্যাতন নেমে আসছে এতে আর চুপ করে বসে থাকার সুযোগ নেই। তাই এই গুম, খুনে বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে আন্দোলনের যাক দিবেন খালেদা জিয়া।

বৈঠকে আইপিইউ সম্মেলন নিয়ে কথা উঠলে খালেদা জিয়া বলেন, ইন্টার-পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের (আইপিইউ) সম্মেলনে সরকার বিএনপি সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিয়েছে অভিযোগ করে বৈঠকে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়। বিএনপিকে হেয় করার জন্য ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা নিয়ে মিথ্যা তথ্য দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ছাত্রদল নেতা নূরু হত্যার প্রতিবাদে কর্মসূচি ঘোষণার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, জমির উদ্দিন সরকার, তরিকুল ইসলাম, মাহবুবুর রহমান, রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। রাত সাড়ে ৯টায় এই বৈঠক শুরু হয়ে শেষ রাত ১১টায়। বৈঠক শেষে কোনো আনুষ্ঠানিক ব্রিফিং করা হয়নি।

বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সোহেল সাংবাদিকদের বলেন, ‘দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, আইনশৃঙ্খলা অবস্থা, কুটনৈতিক বিষয়দিসহ দলের সাংগঠনিক অবস্থা নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন দলের নীতি নির্ধারনী ফোরামের সাথে বৈঠকে বসেছেন। বৈঠকের বিষয়বস্ত নিয়ে সোমবার দুপুর ১টায় বিএনপির নয়াপল্টনের কার্যালয়ে ব্রিফিং হবে।’

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.