রাত থেকে গাছের মগডালে ঠায় বসে রয়েছে ছেলে। আর নিচ হাঁক পাড়ছেন মা- ওরে সুভাষ ফিরে আয়। কিন্তু যাকে ডাকা, তার কোনো ভাবান্তর নেই। সোমবার রাত ১১টায় বিষ্ণুপুরের বিশ্বাস পাড়ার বছর আঠাশের যুবক সুভাষ মণ্ডল ঘর থেকে ঊর্ধ্বশ্বাসে বেরিয়ে পাশের আশ্রমের একটি নিমগাছে তরতরিয়ে উঠে পড়েন। সারারাত তো বটেই, মঙ্গলবার বেলাতেও তাকে নামাতে রীতিমতো কালঘাম ছোটার অবস্থা হয় সবার। খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকালে বিষ্ণুপুরের বিশ্বাস পাড়ায় ভোলে ভাণ্ডারী আশ্রমে বহু লোক জড়ো হয়ে ছিলেন। সেই ভিড়ের মধ্যে থেকে সুভাষের মা মালতি মণ্ডল ছেলেকে বাবা-বাছা করে নামানোর চেষ্টা চালাচ্ছেন চিৎকার করে। দুই দাদা বিশ্বনাথ মণ্ডল, সাগর মণ্ডলও কম চেষ্টা করছিলেন না। কিন্তু সুভাষের সে সবে কোনো ভ্রূক্ষেপ নেই। মাঝে মধ্যেই গাছের এক ডাল থেকে অন্য ডালে পা মেলে বসছেন। ডাল নড়ে উঠতেই নিচ থেকে জনতার চিৎকার উঠছে- এই রে, গেল বোধহয়।
তাকে নামাতে প্রলোভনও কম দেওয়া হয়নি। মা হাঁকলেন, সুভাষ এবার তোর বিয়ে দেব। নেমে আয় বাবা। বন্ধুরা নেশার জিনিসের প্রলোভন দিতে থাকল। কিন্তু কিছুতেই মন গলানো যায় না সুভাষের। কৌতূহল চাপতে না পেরে বকুলতলা মোড়ে দাড়ি কাটা ছেড়ে একগাল সাবান মাখা মুখে চলে এসেছিলেন মনোরঞ্জন সেন, শাঁখারিবাজারের দোকান ছেড়ে সৌরভ দে হাজির মেয়েকে নিয়ে। পুজোপাঠ ছেড়ে ধুতি পরে ঘটি হাতে পুরোহিত সঞ্জীব চক্রবর্তীও হাজির।
সবার মুখেই একটাই প্রশ্ন, ছেলেটা কী চায়? শোলের বীরুর মতো বাসন্তীকে বিয়ে করতে চেয়ে আত্মহত্যার হুমকি দিচ্ছে নাকি? পড়শিরা তাদের বোঝাচ্ছিলেন, ও সব হলে তো দেখা যেত। কিন্তু সুভাষ যে মানসিকভাবে অসুস্থ। কেন যে গাছে চড়ল ওর বাড়ির লোকরাই জানে না। সুভাষের দুই দাদা বলেন, বছরখানেক ধরে ভাইয়ের মানসিক সমস্যা চলছে। মাস চারেক আগে বাঁকুড়া মেডিক্যালেও চিকিৎসা করিয়ে এনেছি। কিন্তু কখনোই এমন কাণ্ড করেনি। তারা জানান, সোমবার রাতে তারা যখন শোয়ার তোড়জোড় করছিলেন, সেই সময় সুভাষ হঠাৎ চিৎকার করতে করতে দরজা খুলে দৌড়ে বেরিয়ে যায়। দাদারা পিছু নিলে মেরে ফেলবে বলে সুভাষ তাদের হুমকিও নাকি দিয়েছিলেন।
আশ্রমের মালিক বাউল বাগদি বলেন, ছেলেটা সারারাত গাছে। আর আমরাও সারা রাত নিচে। হঠাৎ যদি ছেলেটা ঘুমিয়ে পড়ে গাছ থেকে পড়ে যায়, সেই আতঙ্কে কাঁটা হয়ে ছিলাম। পড়শি তাপু বিশ্বাস, শম্ভু দে, প্রশান্ত লায়েকরা বলেন, সারারাত না খেয়ে রয়েছে ছেলেটা। একে খিদে তার ওপর এই চড়া রোদ, ও মাথা ঘুরে পড়ে গেলে তো বিপদ বেড়ে যাবে।
বিষ্ণুপুরের উপপুরপ্রধান বুদ্ধদেব মুখোপাধ্যায় ও পাশের ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দিবেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় এসে ততক্ষণে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের ডেকে এনেছেন। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা পাশের একটি বাড়ির ছাদে উঠে সুভাষের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করেন। ফল হয় উল্টো। সুভাষ গাছের আরও ওপরে উঠে যান। বেগতিক দেখে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরাও সুভাষকে বোঝানোর চেষ্টা চালান। কিন্তু চিড়ে ভেজেনি। জনতা বলতে থাকেন, গাছের নিচে জাল পাতা দরকার। সে সবের অবশ্য প্রয়োজন হয়নি। বেলা প্রায় ১২টার দিকে ছোট ভাই চায়ের দোকানদার পচু মণ্ডল এক প্যাকেট বিস্কুট নিয়ে গাছে উঠে পড়েন। ভাইয়ের হাত থেকে বিস্কুট চিবোতে চিবোতে দুজনের কী যেন কথা হয়। তারপরই নেমে আসেন সুভাষ। শেষমেশ সুভাষ ঘরে ফেরায় হাঁফ ছাড়লেন সবাই। 

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.