ভারতের উত্তর প্রদেশের একটি আবাসিক স্কুলে প্রায় ৭০ জন ছাত্রীকে নগ্ন করে তাদের দেহ পরীক্ষা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আবাসিক স্কুলটির বাথরুমে রক্তমাখা এক টুকরা কাপড় পাওয়া যাওয়ার পর কোন ছাত্রীর ঋতুস্রাব হচ্ছে তা খুঁজতে এ ব্যবস্থা নেন স্কুলের হোস্টেলের তত্ত্বাবধায়ক (ওয়ার্ডেন); যিনি নিজেও একজন নারী।

স্কুলের ছাত্রীদের মধ্যে দু’জনকে দিয়েই পরীক্ষার কাজটি করানো হয়। বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে ঘটনার কথা জানানো হয়েছে।

ঘটনার পর স্থানীয় প্রশাসন সুরেখা তোমর নামে ওই ওয়ার্ডেনকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে, গঠন করা হয়েছে একটি তদন্ত কমিটিও। স্কুলের ছাত্রীরা গেল বুধবারের এ ঘটনার কথা তাদের অভিভাবকদের জানিয়ে দিলে বিষয়টি নিয়ে বিক্ষোভও করেছেন অভিভাবকরা।

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর প্রদেশের মুজফ্ফরনগর জেলার একটি স্কুলে।

সুরেখার অবশ্য দাবি একটা ষড়যন্ত্র হয়েছে তার বিরুদ্ধে। এতে অন্য শিক্ষিকাদের সঙ্গে ছাত্রীরাও জড়িত।

সেই সঙ্গে এ কথাও বলছেন তিনি, যদি দেহ-পরীক্ষা করা হয়েই থাকে, সেটা ‘এমন কোনো’ বড় ব্যাপার নয়।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.