রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রীনিবাস থেকে গতকাল বুধবার সকাল ১১টায় আন্তর্জাতিক মডেল রাউদা আদিবের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ধারণা করা হচ্ছে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। 

 রাউদার আত্মহত্যা মেনে নিতে পারছি না : পিয়া

রাউদার বাড়ি মালদ্বীপে। তিনি বাংলাদেশে পড়ালেখা করতেন। আন্তর্জাতিক মডেল হিসেবে গত বছর খ্যাতনামা আন্তর্জাতিক ফ্যাশন পত্রিকা ভোগ ইন্ডিয়ার নবম বর্ষপূর্তি সংখ্যার প্রচ্ছদে মডেল হিসেবে রাউদার ছবি ছাপা হয়। একই সংখ্যায় মডেল ছিলেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও মডেল জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া।

পিয়া বলেন, রাউদার সঙ্গে গত বছর ভোগ এর ফটোশুটেই পরিচয় হয়েছিল। তখন সে বলেছিল যে বাংলাদেশে পড়ালেখা করছে। এরপর আর যোগাযোগ হয়নি। হঠাৎ করেই সংবাদে দেখলাম রাউদা আত্মহত্যা করেছে। এটা খুবই বেদনার। মাত্র ২০ বছরে এভাবে আত্মহত্যা কেন করলেন রাউদা? অনেকের মতো এই প্রশ্ন পিয়ার। তিনি বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে আত্মহত্যাকে ঘৃণা করি। জীবনে আনন্দ যেমন থাকবে, কষ্টও থাকবে। আত্মহত্যা কোনো সমাধান নয়।

পিয়া আরও বলেন, রাউদা আদিব মালদ্বীপের তারকা মডেল। ভারতেও তার জনপ্রিয়তা ছিল। রাউদার ব্যাপক সম্ভাবনা ছিল। হঠাৎ করে এই মেয়েটা কেন আত্মহত্যা করল? ঠিক বুঝতে পারছি না। মাত্র ২০ বছরের একটা মেয়ে এভাবে আত্মহত্যা কেন করে? এভাবে জীবনকে শেষ করে দেওয়া ঠিক হয়নি। রাওদা ইসলামী ব্যাংক মেডিক্যাল কলেজে এমবিবিএস ১৩তম ব্যাচের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। তিনি মালদ্বীপের এম লেভেন্ডার হিগুইন মালে এলাকার বাসিন্দা মোহাম্মদ আদিবের মেয়ে।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.