হিমাচলের অষ্টাদশী মনীষা। ইতিমধ্যে ৩৪ বার সাপের কামড় খেয়েছেন তিনি। কিন্তু তারপরও বহাল তবিয়তে রয়েছেন। সাপে মোটে ভয় নেই এই মেয়ের। ভাবনা নেই পরিবারেরও। উল্টে মনীষার বাবা বলেন, সাপে কামড়ানো তো মেয়ের রুটিন হয়ে গেছে।

হিমাচল প্রদেশের সিরমাউর জেলার বাসিন্দা মনীষা বর্মা। তিনি বলেন, “প্রথমবার আমাদের গ্রামেই নদীর ধারে একটা সাদা সাপ আমাকে কামড়ায়। গত তিন বছরেই আমি ৩০ বার সাপের কামড় খেয়েছি। যখনই আমি সাপ দেখি, ভীষণ খুশি হই। মাঝের দু্’বছর অবশ্য আমাকে কোনও সাপ কামড়ায়নি। কিন্তু স্কুলে পড়ার সময় একাধিকবার সাপের কামড় খেয়েছি। এমনকী দিনে দু থেকে তিনবারও আমাকে সাপ কামড়েছে।”

এ নিয়ে মনীষার পরিবার বহু জ্যোতিষী, তান্ত্রিকের কাছেও গেছে। তাদের দাবি, মনীষার মধ্যে কোনও শুভশক্তি রয়েছে।

যদিও চিকিৎসকরা মনে করেন, যেসব সাপ মনীষাকে কামড়েছে, তারা হয় নির্বিষ, কিংবা তাদের শরীরের বিষ কম।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি সাপের কামড় খেয়ে স্থানীয় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন মনীষা।

হাসপাতালের সুপার ওয়াই এস পারমার জানান, এখন মনীষা বিপদমুক্ত। নির্বিষ কোনও সাপই তাকে কামড়েছে বলে মনে করছেন তিনি।

মনীষার বাবা সুমের বর্মা জানান, সাপের কামড় তো এখন মেয়ের রুটিন হয়ে গেছে। দৈবিক কোনও শক্তি মেয়েকে বারবার বিপদ থেকে রক্ষা করে বলেই ধারণা পরিবার ও প্রতিবেশীদের।

হিমাচল প্রদেশ সরকারের বনবিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক রোহিত জানান, “ওই মেয়েটিকে কোন সাপ কামড়েছে তা জানা নেই। তবে বারবার সাপ কামড়ানোর ফলে মেয়েটির শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হতে পারে।”

১৮ বছরের এই তরুণীর শরীরে বিষে বিষে বিষক্ষয় হতে পারে বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.