প্লট ও ফ্ল্যাটের রেজিস্ট্রেশন বা নিবন্ধন ফি অর্ধেকে নামিয়ে আনার দাবি করেছে আবাসন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন রিহ্যাব।





 তারা বলছেন, আবাসন শিল্পে স্থবিরতার জন্য অত্যধিক রেজিস্ট্রেশন ব্যয় দায়ী। বর্তমানে উৎসে কর, ভ্যাট, আয়কর এবং বিভিন্ন ধরনের ফি মিলে করভার ১৪ শতাংশের বেশি। এটি কমিয়ে ৬ থেকে ৭ শতাংশে নিয়ে এলে এ খাতে কিছুটা গতিশীলতা ফিরবে।

 শনিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে রিহ্যাবের পক্ষ থেকে এ দাবি জানানো হয়। রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিতব্য আবাসন মেলা উপলক্ষে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। আগামী ২১ থেকে ২৫ ডিসেম্বর পাঁচ দিনব্যাপী এ আবাসন মেলা অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে রিহ্যাবের সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন বলেন, কয়েক বছর ধরে নীতিনির্ধারণী কিছু সমস্যার কারণে আবাসন খাতে সংকট সৃষ্টি হয়েছে। এ খাতে গতিশীলতা আনতে 'হাউজিং লোন' নামে ২০ হাজার কোটি টাকার পুনঃতহবিল করতে হবে। সিঙ্গেল ডিজিট সুদে এ তহবিল থেকে ঋণের ব্যবস্থা করলে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির আবাসনের স্বপ্ন পূরণ হবে। জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে ১৫ শতাংশ ভূমিকা রাখলেও সরকার রেজিস্ট্রেশন এবং অর্থায়ন সমস্যার সমাধান করছে না।

গ্রাহক হয়রানি বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রিহ্যাব সদস্য ছাড়া প্রায় এক হাজার ২০০ প্রতিষ্ঠান আবাসন ব্যবসা করেছে। এসব প্রতিষ্ঠান ও রিহ্যাব সদস্যদের মধ্যে কেউ কেউ কিছু গ্রাহকের সঙ্গে প্রতারণা করছে। রিহ্যাব সদস্য হলে অভিযোগ সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হয়। সরকার যদি আইন করে, রিহ্যাব সদস্য ছাড়া কেউ আবাসন ব্যবসার অনুমোদন পাবে না, তাহলে প্রতারণা কমে যাবে।

শামসুল আলামিন বলেন, প্লট ও ফ্ল্যাট ক্রেতাদের জন্য আকর্ষণীয় অফার নিয়ে আগামী ২১ ডিসেম্বর থেকে ঢাকায় শুরু হচ্ছে ১৬তম মেলা। ক্রেতাদের সুবিধার জন্য ২০০১ সাল থেকে সফলভাবে এ মেলার আয়োজন করে আসছে রিহ্যাব। মেলায় সাধ ও সাধ্যের মধ্যে ফ্ল্যাট বা প্লট খুঁজে নিতে ক্রেতাদের সহায়তা করা হয়। পাঁচ দিনব্যাপী এ মেলায় ১৭৫টি স্টল থাকবে। এ ছাড়া ৩০টি ভবন নির্মাণসামগ্রী এবং অর্থলগ্নিকারী প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে। মেলায় অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ক্রেতাদের জন্য ছাড় দেবে। ক্রেতাদের পছন্দ অনুযায়ী ছাড়ের সুযোগ গ্রহণের আহ্বান জানান তিনি।

রিহ্যাব সভাপতি বলেন, রিহ্যাবের সদস্য ছাড়া অথবা অননুমোদিত কোনো প্রতিষ্ঠানের স্টল থাকলে তা বন্ধ করে দেওয়া হবে। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এবং রিহ্যাব যৌথভাবে এ বিষয়ে একটি বিশেষ তদারকি টিম গঠন করেছে। মেলায় গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণার সুযোগ নেই।

রিহ্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ২১ ডিসেম্বর বিকেল ৪টায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত রিহ্যাব আবাসন মেলা ২০১৬-এর উদ্বোধন করবেন। তবে ক্রেতা-দর্শনার্থীরা বেলা ১১টা থেকে মেলায় প্রবেশ করতে পারবেন। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলায় দর্শনার্থীরা প্রবেশ করতে পারবেন। মেলায় প্রবেশে সিঙ্গেল এন্ট্রি ফি ৫০ টাকা এবং মাল্টিপল এন্ট্রি ফি ১০০ টাকা। মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিট দিয়ে একজন দর্শনার্থী সর্বোচ্চ পাঁচবার প্রবেশ করতে পারবেন।

টিকিট বিক্রি থেকে প্রাপ্ত অর্থ দুস্থদের সাহায্যার্থে ব্যয় করা হবে। টিকিটের ওপর প্রতিদিন রাত ৯টায় র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হবে। র‌্যাফেল ড্রর প্রথম পুরস্কার ৩২ ইঞ্চি এলইডি টিভি, দ্বিতীয় পুরস্কার ডিপ ফ্রিজ, তৃতীয় পুরস্কার মোবাইল ফোন, চতুর্থ পুরস্কার ট্যাব ও পঞ্চম পুরস্কার ইলেট্রনিক ওভেন। এবার রিহ্যাব মেলায় ২০টি হাউজিং প্রতিষ্ঠান, চারটি ভবন নির্মাণসামগ্রী প্রতিষ্ঠান এবং অর্থলগ্নিকারী প্রতিষ্ঠান কো-স্পন্সর হিসেবে রয়েছে।

জানা গেছে, রিহ্যাবের এক হাজার ৬৬টি সদস্য প্রতিষ্ঠান ও ক্রেতাদের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করবে আবাসন মেলা। চট্টগ্রামে নয়টি মেলা করা হয়েছে। ২০০৪ সাল থেকে বিদেশেও মেলার আয়োজন করা হয়েছে। এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ১২টি, যুক্তরাজ্য, দুবাই, ইতালি, কানাডা, সিডনি ও কাতারে একটি করে মেলা সম্পন্ন হয়েছে।

রিহ্যাবের প্রথম সহসভাপতি লিয়াকত আলী ভূঁইয়া বলেন, ঝুঁকিমুক্ত পরিকল্পিত নগরায়নে রূপান্তর ও আবাসন সমস্যা সমাধানে গত ২৫ বছর ধরে রিহ্যাব সরকারের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে কাজ করে আসছে। সরকারের রাজস্ব আয়, কর্মসংস্থান, রড, সিমেন্ট, টাইলসসহ ২৬৯ ধরনের সংযোগ শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এ খাতে ৩৫ লাখ শ্রমিকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন রিহ্যাবের পরিচালক শাকিল কামাল চৌধুরী ও কামাল মাহমুদ।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.