ভারতের উত্তর প্রদেশের কানপুরের কাছে পাটনা-ইন্দোর এক্সপ্রেস ট্রেনের ১৪টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে নিহত যাত্রীর সংখ্যা ১৩৩ ছাড়িয়েছে।আহত হয়েছে শতাধিক। হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। 


ট্রেনের ১৪টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে নিহত যাত্রীর সংখ্যা এখন ১৩৩ জনে

শনিবার স্থানীয় সময় দিনগত রাত ৩টার দিকে কানপুর থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে পোখরানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ইন্দোর-পাটনা এক্সপ্রেসে দুর্ঘটনার জেরে এত প্রাণহানির ঘটনায় উঠে আসছে বেশ কিছু তথ্য। সূত্রের খবর, প্রাণহানির অন্যতম কারণ মাত্রাতিরিক্ত যাত্রীর চাপ। ধারণক্ষমতার থেকেও বেশি যাত্রী ছিল ট্রেনটিতে।

ট্রেনের ১৪টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে নিহত যাত্রীর সংখ্যা এখন ১৩৩ জনে


রেল কর্তৃপক্ষের তরফে বলা হয়েছে, দুর্ঘটনার সময় ইন্দোর-পাটনা ট্রেনে যাত্রীর সংখ্যা ছিল ১,২০০ জন। কিন্তু, সূত্র বরাতে জানা গেছে, ১২০০-র বেশি যাত্রী ছিল ট্রেনের মধ্যে। তার মধ্যে বিনা টিকিটে ভ্রমণ করছিলেন অনেকেই। তার মধ্যে অনেকের কাছে জেনেরাল টিকিট ছিল। তাই ট্রেনে যাত্রী সংখ্যা আসলে কত ছিল তা সঠিকভাবে জানা যায়নি।

রেলের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ট্রেনের যাত্রী ধারণক্ষমতা যা, তার থেকে ৫০০ জন যাত্রী বেশি ছিল ট্রেনটিতে। রোববার ট্রেনে যাত্রী সংখ্যা বেশি থাকার কথা স্বীকার করেছে স্টেশনে থাকা ভেন্ডররা। যার ফলে রেলের তরফে অতিরিক্ত বগি লাগানো হয়েছিল বলে জানিয়েছে তারা। কিন্তু, তা সত্ত্বেও যাত্রী সংখ্যা ছিল মাত্রাতিরিক্ত। স্টেশনে থাকা এক ভেন্ডর বলেন, “অন্যদিনের তুলনায় রোববার জেনারেল বগিতে যাত্রী সংখ্যা ছিল মাত্রাতিরিক্ত। বগিতে যতজন যাত্রী ধরে, তার থেকে অনেক বেশি উঠেছিল ট্রেনে।”

সবচেয়ে বড় কথা, পাটনা থেকে ইন্দোর যাওয়ার জন্য কেবলমাত্র এই একটা ট্রেনই ভরসা। তাই, এই ট্রেনে যাত্রী সংখ্যাও বেশি থাকে।

দুর্ঘটনায় এত মানুষের প্রাণহানির পিছনে উঠে আসছে আরো একটি তথ্য।

জানাগেছে, পুরনো আমলের কোচ ব্যবহার করা হয়েছিল ইন্দোর-পাটনা এক্সপ্রেসে। ওই ট্রেনে ইন্টিগ্রেটেড কোচ ফ্যাকট্রি (ICF) ব্যবহার করা হয়েছিল।
রেল কর্তাদের একাংশের মতে, ট্রেনে যদি অত্যাধুনিক লিঙ্ক হফম্যান বুশ কোচ (LHB) ব্যবহার করা হত তাহলে এত প্রাণহানি হতো না। LHB কোচ ব্যবহার করা হয় শতাব্দি ও রাজধানীতে। ICF কোচের থেকে LHB কোচের সহ্য ক্ষমতা অনেক বেশি। এক্ষেত্রে ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে গেলেও কোচগুলি পালটি খায় না। ধাক্কার চোটে একটি কোচ অন্য কোচের উপর উঠে যায় না। ফলে কম ক্ষতিগ্রস্ত হয় ট্রেনটি।

দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচেছেন বহু যাত্রী। তাদের জন্য স্পেশাল ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সোমবার সকালে পাটনা পৌঁছয় সেই ট্রেনটি।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.