জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) সুপারিশের আলোকে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের একটি নির্ভরযোগ্য তালিকা প্রণয়নের লক্ষ্যে মুক্তিযোদ্ধা-এর সংজ্ঞা ও বয়স  নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়।




মঙ্গলবার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা সুফি আবদুল্লাহ মারুফ গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছেন।

গত ৬ নভেম্বর রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মো. মাহবুবুর রহমান ফারুকী স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে 'জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক স্বাধীনতার  ঘোষণায় সাড়া দিয়ে একাত্তরের ২৬ মার্চ হতে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ের মধ্যে যে সকল ব্যক্তি বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন, তারাই মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গণ্য হবেন।'

যথা: ক) যে সমস্ত ব্যক্তি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্য বাংলাদেশের সীমানা অতিক্রম করে ভারতের বিভিন্ন  ট্রেনিং/প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন; খ)  যে সকল বাংলাদেশি  পেশাজীবী মুক্তিযুদ্ধের সময় বিদেশে অবস্থানকালে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বিশেষ অবদান রেখেছেন এবং  যে সকল বাংলাদেশি বিশিষ্ট নাগরিক বিশ্বে জনমত গঠনে সক্রিয় ভুমিকা  রেখেছেন; গ) যারা মুক্তিযুদ্ধকালীন গঠিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের (মুজিবনগর সরকার) অধীনে কর্মকর্তা/কর্মচারি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন; ঘ) সশস্ত্রবাহিনী, পুলিশ, ইপিআর, আনসার বাহিনীর সদস্য যারা মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেছেন; ঙ) মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের (মুজিবনগর সরকার) সাথে সম্পৃক্ত এমএনএগণ (MNA) ও এমপিএগণ (MPA) (গণপরিষদ সদস্য); চ) পাকিস্থানি হানাদার বাহিনী ও তাদের সহযোগী কর্তৃক নির্যাতিত নারীগণ (বীরাঙ্গনা); ছ) স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ও কলাকুশলীবৃন্দ এবং দেশ ও  দেশের বাহিরে দায়িত্ব পালনকারী বাংলাদেশি সাংবাদিকগণ; জ) স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের খেলোয়াড়বৃন্দ; ঝ) মুক্তিযুদ্ধকালে আহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী  মেডিকেল টিমের চিকিৎসক, নার্স ও সহকারিবৃন্দ।’

এ ছাড়া  মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নতুনভাবে অন্তর্ভূক্তির ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধার বয়স ২৬ মার্চ ১৯৭১ তারিখে ন্যূনতম ১৩ বছর হতে হবে।

প্রসঙ্গত, মুক্তিযোদ্ধা যাছাই-বাছাইয়ের ক্ষেত্রে নিদিষ্ট সংজ্ঞা ও বয়স অনেক আগে থেকেই নির্ধারিত আছে। এর ভিত্তিতে স্বাধীনতার পর থেকে মুক্তিযোদ্ধা সনদ প্রদান করা হতো। তবে এটি বিভিন্ন সময় সংশোধনও করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে ২০১৪ সালে হাইকোর্টে একটি রিট হলে গত দুই বছর ধরে মুক্তিযোদ্ধা হতে ইচ্ছুক প্রায় দেড় লাখ আবেদনকারীর তথ্যাদি যাছাই-বাছাই বন্ধ রয়েছে। সম্প্রতি হাইকোর্টে ওই রিট নিষ্পত্তি হলে মন্ত্রণালয় থেকে মুক্তিযোদ্ধার সংজ্ঞা ও বয়স নির্ধারণের বিষয়টি প্রজ্ঞাপন আকারে জারির করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর আলোকে ৬ নভেম্বর প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রণালয়।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.