বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে চুরি হওয়া ৮ কোটি ১০ লাখ ডলারের মধ্যে ১ কোটি ৫২ লাখ ডলার ফেরত পেয়েছে বাংলাদেশ।





বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান জানান, শুক্রবার ফিলিপাইনের মুদ্রাপাচার প্রতিরোধ কাউন্সিলের (এএমএলসি) কাছ থেকে দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জন গোমেজ নগদ এই অর্থ গ্রহণ করেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রাপাচার প্রতিরোধ বিভাগের দুই সদস্যের প্রতিনিধি দলের উপস্থিতিতে তিনি এ অর্থ গ্রহণ করেন।

এই অর্থ ফিরিয়ে আনতে বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিটের মহাব্যবস্থাপক দেবপ্রসাদ দেবনাথের নেতৃত্বে দুই সদস্যের প্রতিনিধি দলটি গত ৭ নভেম্বর ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলায় যায়।

রাজি হাসান জানান, রিজার্ভের উদ্ধার করা এই অর্থ নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবে জমা করা হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে গত ফেব্রুয়ারি মাসে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি হয়। এর মধ্যে একটি নামের বানান ভুলের কারণে শ্রীলংকায় যাওয়া ২ কোটি ডলার ছাড় হয়নি। তবে ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের মাকাতি শাখায় যাওয়া ৮ কোটি ১০ লাখ ডলারের প্রায় পুরোটাই ছাড় করা হয়।

এ ঘটনা ফাঁসের পর বিশ্বজুড়ে তোলপাড় শুরু হলে প্রশ্ন উঠে আর্থিক বার্তা প্রেরণের মাধ্যম সুইফট ও ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে। বিভিন্ন পক্ষের তৎপরতায় ফিলিপাইনের সিনেটে কয়েক দফা শুনানি শেষে কিম অং তার আইনজীবীর মাধ্যমে চার দফায় এক কোটি ৫২ লাখ ডলারের সমপরিমাণ অর্থ জমা দেন।

এরপর দেশটির মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ কাউন্সিলে (এএমএলসি) জমা হওয়া অর্থ পরে ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত হয়। এখন তা বাংলাদেশের অনুকূলে অবমুক্ত করতে ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংককে আদেশ দেন দেশটির আঞ্চলিক বিচারিক আদালত।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.