যুক্তরাষ্ট্র থেকে অবৈধ অভিবাসীদের বিতাড়ন ও মুসলমানদের ঢুকতে না দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে বিতর্কিত ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে এবার সুর কিছুটা নরম করেছেন। 





দেশটিতে সংখ্যালঘু মুসলিম, আফ্রিকান-আমেরিকান ও হিস্পানিক জনগোষ্ঠীকে হয়রানি করার খবরে দুঃখ প্রকাশ করে ট্রাম্প তার সমর্থকদের উদ্দেশে বলেছেন, এ ধরনের হয়রানি বন্ধ করুন। উদ্বিগ্ন মার্কিনদের আশ্বস্ত করে তিনি বলেছেন, তার শাসনামল নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। স্থানীয় সময় রোববার যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সিবিএস টেলিভিশন চ্যানেলের 'সিক্সটি মিনিটস' অনুষ্ঠানে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প এসব কথা বলেন। সাক্ষাৎকারটি শুক্রবার ধারণ করে চ্যানেলটি। খবর সিএনএন, এনডিটিভি ও এএফপির।



প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জনপ্রিয় হিলারি ক্লিনটনকে হারিয়ে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প জয়ী হওয়ার পর থেকেই তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছে যুক্তরাষ্ট্রবাসী। জাতিগত বিভেদ ও ঘৃণা ছড়িয়ে দেওয়া ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে মানতে নারাজ তারা। দেশটির শতাধিক শহরে হাজার হাজার মানুষ পাঁচ দিন ধরে বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে প্রথমবারের মতো গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিলেন ট্রাম্প। আশ্বস্ত করার চেষ্টা করলেন দেশবাসীকে।


মার্কিনদের উদ্দেশে ট্রাম্প বলেন, ভীত হবেন না। আমরা আমাদের দেশকে আগের অবস্থায় নিয়ে যেতে চাই।


বিক্ষোভ নিয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে সিবিএসকে ট্রাম্প বলেন, আমি মনে করি না, তারা আমাকে ঠিকভাবে চেনে।


আমি শুধু তাদের বলব, এটি আর করবেন না। এটি ভয়ানক। কারণ, আমি দেশকে এক করতে চাই।


ট্রাম্প বলেন, হিলারি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে পরের দিন থেকে যদি আমার সমর্থকরা রাস্তায় নামতেন, বিক্ষোভ করতেন, তবে তো সবাই বলত, এ তো ভয়ানক ব্যাপার। তখন সবাই ভিন্ন আচরণ করতেন।


অনুষ্ঠানের সঞ্চালক লেসলি স্টাহল ট্রাম্পের সমর্থকদের দেওয়া বিভিন্ন বর্ণবাদী স্লোগানের প্রসঙ্গ তোলেন। ল্যাটিনো ও মুসলমানদের হয়রানির মুখে পড়তে হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন লেসলি। জবাবে ট্রাম্প বলেন, এ কথা শুনে তিনি কষ্ট পেয়েছেন। তিনি তা বন্ধেরও আহ্বান জানান।


সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, গর্ভপাত ও আগ্নেয়াস্ত্র রাখার অধিকারের বিরুদ্ধে যারা রয়েছেন, তাদের তিনি বিচারপতি হিসেবে সুপ্রিম কোর্টে নিয়োগ দেবেন। যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীল বিচারপতি আন্তোনিন স্কালিয়ার মৃত্যুর পর সেই শূন্যপদ পূরণের সুযোগ রয়েছে ট্রাম্পের সামনে। রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত সিনেটের বাধার মুখে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ওই শূন্যপদে কোনো বিচারপতিকে নিয়োগ দিতে পারেননি।


ট্রাম্প বলেন, ৩০ লাখ অবৈধ অভিবাসীকে হয় দেশছাড়া করবেন, নয়তো জেলে ঢোকাবেন। তিনি আরও বলেন, আমরা যেটা করতে যাচ্ছি তা হলো, যেসব লোকের অপরাধ কমকাণ্ডের রেকর্ড রয়েছে, যারা অপরাধী চক্রের সদস্য, মাদক কারবারি, তাদের সংখ্যা প্রচুর। সম্ভবত ২০ লাখ, ৩০ লাখও হতে পারে। আমরা তাদের দেশ থেকে বের করে দেব অথবা কারারুদ্ধ করব।


যুক্তরাষ্ট্রে অনিবন্ধিত অভিবাসীর সংখ্যা এক কোটি ১০ লাখের মতো। এই অবৈধ অভিবাসীদের একটি বড় অংশ প্রতিবেশী দেশ মেক্সিকোর নাগরিক। তাদের প্রবেশ ঠেকাতে এর আগে মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল তোলার কথা বলেছিলেন ট্রাম্প। এ প্রসঙ্গে সাক্ষাৎকারে ট্রাম্পকে প্রশ্ন করা হয়, মেক্সিকো সীমান্তের কিছু অংশে দেয়ালের পরিবর্তে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হলে তিনি কি তা মানবেন?


জবাবে ট্রাম্প বলেন, কিছু অংশে দেয়াল তোলাটাই হবে সঠিক পদক্ষেপ। আমি অন্তত তা-ই মনে করি। তবে নির্দিষ্ট কিছু অংশে বেড়াও দেওয়া যেতে পারে।


যুক্তরাষ্ট্রে সমলিঙ্গ বিয়ে বৈধ রাখার সিদ্ধান্ত থেকেও সরে আসবেন না বলে জানান ট্রাম্প। তিনি বলেন, এটা আইন। এটা সুপ্রিম কোর্টে নিষ্পত্তি করা হয়েছে। সমলিঙ্গ বিয়ে সমর্থন করেন কি-না_ এমন প্রশ্নের উত্তরে ট্রাম্প বলেন, এতে তার কোনো অসুবিধা নেই।


যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বছরে বেতন হিসেবে চার লাখ ডলার পেয়ে থাকেন। ট্রাম্প জানান, তিনি এ বেতন নেবেন না। তবে আইন মানতে হবে। তাই তিনি বছরে এক ডলার বেতন নেবেন।


এদিকে হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ ও নিজের প্রধান কৌশলগত উপদেষ্টার নামও ঘোষণা করেছেন তিনি। হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ হবেন রিপাবলিকান ন্যাশনাল কমিটির সভাপতি রিন্স প্রিবাস। আর ট্রাম্পের প্রধান কৌশলগত উপদেষ্টা হবেন রক্ষণশীল দলের সমর্থক ব্রাইতবার্ত নিউজ নেটওয়ার্কের প্রধান নির্বাহী নেতা স্টিভ বেনন।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.