পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে অক্টোবরে সাধারণ মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে। চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরের অক্টোবরে সাধারণ মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৫ দশমিক ৫৭ শতাংশ, যা গত সেপ্টেম্বরে ছিল ৫ দশমিক ৫৩ শতাংশ।





বৃহস্পতিবার শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হালনাগাদ এ তথ্য সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

তিনি বলেন, সরকারের নানামুখী পদক্ষেপের কারণে মূল্যস্ফীতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আছে। চলতি অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রার নিচে থাকবে মূল্যস্ফীতি। তবে গত মাসে কিছু পণ্যের দাম সামান্য বাড়ায় মূল্যস্ফীতি সামান্য বেড়েছে।

পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে মূল্যস্ফীতি বলতে আগের বছরের নির্দিষ্ট কোন মাসের ভোক্তা মূল্য সূচকের তুলনায় পরের বছর একই মাসে ওই সূচক যতটুকু বাড়ে তার শতকরা হারকে বুঝায়। অন্যদিকে ১২ মাসের পয়েন্ট টু পয়েন্ট মূল্যস্ফীতির গড় করে বার্ষিক মূল্যস্ফীতির হিসাব করা হয়। খাদ্য এবং খাদ্য বহির্ভূত বিভিন্ন পণ্য ও সেবার মূল্য নিয়ে বিবিএস মূল্যস্ফীতির পরিসংখ্যান তৈরি করে। জাতীয় মূল্যস্ফীতির পাশাপাশি গ্রাম এবং শহরের মূল্যস্ফীতির আলাদা হিসাব করা হয়ে থাকে।

বিবিএসের হালনাগাদ তথ্যে দেখা গেছে, খাদ্যপণ্যে সেপ্টেম্বরের চেয়ে অক্টোবরে মূল্যস্ফীতির হার বেশি। চাল, তেল, চিনি, শাক-সবজি, লবণ, দুধ, দুধজাতীয় ও অন্যান্য খাদ্য সামগ্রীর মূল্য বাড়ার হার বেশি। এজন্য গত মাসে খাদ্য খাতে মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ, যা সেপ্টেম্ব^রে ছিল ৫ দশমিক ১০ শতাংশ।

তবে খাদ্য খাতে অক্টোবরে মূল্যস্ফীতি বাড়লেও কমেছে খাদ্যবহির্ভূত খাতে। খাদ্যবহির্ভূত খাতে সেপ্টেম্বরে মূল্যস্ফীতি ছিল ৬ দশমিক ১৯ শতাংশ, যা এখন ৫ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

গ্রাম ও শহরে মূল্যস্ফীতির আলাদা হিসাবও দিয়েছে বিবিএস। এতে বলা হয়েছে, অক্টোবরে গ্রামে সাধারণ মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৪ দশমিক ৮৭ শতাংশ, আগের মাস সেপ্টেম্ব^রে তা ছিল ৪ দশমিক ৬৩ শতাংশ। গত মাসে শহরাঞ্চলের মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৬ দশমিক ৮৭ শতাংশ। এর আগের মাসে তা ছিল ৭ দশমিক ২১ শতাংশ।

বাজেটে চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরে মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬ শতাংশ। বিবিএস বলছে, দেশের গড় মূল্যস্ফীতি দ্রুত কমে আসছে। গত এক বছরে (নভেম্ব^র ২০১৫ থেকে অক্টোবরে ২০১৬ পর্যন্ত) গড়  মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬৬ শতাংশ। গত বছরের একই সময়ে যা ছিল ৬ দশমিক ২১ শতাংশ।

বৃহস্পতিবার মজুরি সূচকও প্রকাশ করেছে বিবিএস। সংস্থাটির হিসাবে, অক্টোবরে মাসওয়ারী জাতীয় পর্যায়ে সাধারণ মজুরি বৃদ্ধির হার ৬ দশমিক ১৬ শতাংশ। সেপ্টেম্ব^রে এ হার  ছিল ৬ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের জুলাই থেকে নতুন ভিত্তিবছর ধরে ( ২০০৫-০৬) ভোক্তা মূল্য সূচক (সিপিআই) হিসাব করছে বিবিএস। এর আগে ১৯৯৫-৯৬ ভিত্তিবছর ধরে হিসাব করা হতো।

এডিপি বাস্তবায়নের হার: চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন হয়েছে ১৩ দশমিক ৬০ শতাংশ; যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ১১ শতাংশ।

বৃহস্পতিবার একনেক বৈঠক শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, গত বছরের তুলনায় চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে এডিপি বাস্তবায়নের হার কিছুটা বেড়েছে। টাকার অংকেও এডিপি বাস্তবায়ন বেড়েছে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ এবং মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) সর্বশেষ হিসাবে, গত অর্থবছর প্রথম  চার মাসে ১১ হাজার ৫৯৫ কোটি টাকার এডিপি বাস্তবায়িত হয়েছিল, যা চলতি বছরের একই সময়ে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৬  হাজার ৭৭২ কোটি টাকা। এ হিসাবে গত বছরের তুলনায় এবার এডিপিতে টাকার খরচের পরিমাণ ৫ হাজার কোটি টাকা বেড়েছে।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.