মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির নোবেল শান্তি পুরস্কার ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য অনলাইনে এক আবেদনে স্বাক্ষর করেছেন প্রায় এক লাখ মানুষ। 





মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে ব্যাপক মাত্রায় মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় কার্যকর অবস্থান নিতে ব্যর্থ হওয়ায় তার বিরুদ্ধে 'চেঞ্জডটওআরজি'তে এ আবেদন জানানো হয়েছে। আবেদনটি ইন্দোনেশিয়া থেকে করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। খবর বিবিসির।

বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক শান্তি এবং ভ্রাতৃত্ববোধ রক্ষায় যারা কাজ করেন, তাদেরকেই নোবেল শান্তি পুরস্কারের মতো সর্বোচ্চ পুরস্কার দেওয়া হয়। সু চির মতো নোবেল শান্তি পুরস্কারপ্রাপ্তরা জীবনের শেষদিন পর্যন্ত এ মূল্যবোধ রক্ষা করবেন, সবাই এমনটি আশা করেন। যখন একজন নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী শান্তি রক্ষায় ব্যর্থ হন, তখন শান্তির স্বার্থেই নোবেল কমিটির উচিত_ এ পুরস্কার হয় জব্দ করা, নয়তো ফিরিয়ে নেওয়া।

সু চির নোবেল শান্তি পুরস্কার প্রত্যাহারের আবেদনের শুরুতে বিবিসির সাংবাদিক মিশাল হোসেন সম্পর্কে তিনি যে মন্তব্য করেছিলেন, সে ঘটনারও উল্লেখ করা হয়েছে। 

মিয়ানমারের মুসলিমবিদ্বেষী বৌদ্ধদের 'নতুন শক্তি' ট্রাম্প : যুক্তরাষ্ট্রের ভোটারদের প্রশংসা করেছেন মিয়ানমারের এক বৌদ্ধ ধর্মযাজক। ৮ নভেম্বরের ভোটে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়াকে যথার্থ বিবেচনা করে আশিন উয়িরাথু নামের এই ধর্মযাজক বলেন, তিনি মুসলমান বিরোধিতার দিক দিয়ে ট্রাম্পের সঙ্গে নিজের চিন্তাধারার মিল খুঁজে পাচ্ছেন। 

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট মনোনয়নপ্রার্থী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করার পর থেকেই রিপাবলিকান দলের ডোনাল্ড ট্রাম্প ঢালাও মুসলমানবিরোধী বক্তব্য দিয়ে আসছিলেন। মুসলমানদের তিনি যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর একটি এলিমেন্ট হিসেবে ধরে নিয়ে তাদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার দাবিও তোলেন। আর এখন প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর বার্মিজ ধর্মযাজক আশা করছেন, ট্রাম্প তার মুসলমানবিরোধী বক্তব্যানুযায়ী কাজ করতে শুরু করবেন। খবর এপি, টাইমস অব ইসরায়েল।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.