বন্ধুদের আড্ডায় বা টিফিনের খাবারটা তো একটু মুখরোচক হওয়া চাই৷ মসলাদার, মুড়মুড়ে মজার এমন খাবার বানাতে পারেন বাড়িতেও৷ তেমনি কিছু খাবারের রেসিপি 


ফিশ অ্যান্ড চিপস
উপকরণ
ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের জন্য: বড় আলু ২টি, বরফ ঠান্ডা পানি ১ বাটি, ময়দা ১ টেবিল চামচ, তেল ১ কাপ ও লবণ আধা চা-চামচ।
মাছ ভাজার জন্য: মাছের ফিলে ২৫০ গ্রাম, ময়দা ১৭০ গ্রাম, লবণ আধা চা-চামচ, খাওয়ার সোডা আধা চা-চামচ, সিরকা ১ চা-চামচ, তেল ১ কাপ, পানি আধা কাপ ও আরও ৪ টেবিল চামচ।
প্রণালি: আলু ছিলে লম্বালম্বি করে ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের আকারে কেটে নিন। বরফ পানিতে ৩০ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। পানি ঝরিয়ে কিচেন টাওয়েলে আলুগুলো মুছে নিন। এবার তাতে ময়দা ছড়িয়ে দিয়ে ঝাঁকিয়ে মিশিয়ে দিন। কড়াইতে তেল গরম করে তাতে আলুগুলো সোনালি করে ভেজে তেল ঝরিয়ে নিন। এবার তাতে লবণ দিয়ে ঝাঁকিয়ে মিশিয়ে রাখুন।
মাছ ভাজার জন্য: মাছের ফিলে ধুয়ে কিচেন টাওয়েল দিয়ে চেপে চেপে মুছে নিতে হবে। একটি বাটিতে ময়দা, লবণ ও পানি গুলিয়ে বাটার নিন। এবার বাটারের মাঝেখাওয়ার সোডা স্তূপকরে দিয়ে তার ওপর সিরকা দিন। বুদবুদ হবে, এটা আলতো করে বাটারে মিশিয়ে দিন। এবারফিশ ফিলে তাতে চুবিয়ে তেলে সোনালি করে ভেজে তুলুন।

বাড়তি তেল ঝরিয়ে ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন লেবুসহ ।
স্পাইসি চিকেন মাশরুম পিৎজা
স্পাইসি চিকেন মাশরুম পিৎজা
উপকরণ
ডোয়ের জন্য: ইস্ট ২ চা-চামচ ও ১ চিমটি, চিনি আধা চা-চামচ, গরম পানি পৌনে ১ কাপ, ময়দা ৪৩০ গ্রাম ও লবণ আধা চা-চামচ।
টপিংয়ের জন্য: সেদ্ধ করা মুরগির বুকের মাংস ১ টুকরা (ছোট কিউব), বাটন মাশরুম পাতলা স্লাইস করে নেওয়া ১ কাপ, সয়াসস ১ টেবিল চামচ, রসুনবাটা আধা চা-চামচ, তেল ১ টেবিল চামচ, গোলমরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, কর্নফ্লাওয়ার ২ টেবিল চামচ, পেঁয়াজবাটা ১ টেবিল চামচ, দুধ ১ কাপ, মোজারেল্লা চিজ গ্রেট করা ১ কাপ, দেশি পনির (গ্রেট) ১ কাপ, টমেটো পিউরি আধা কাপ ও মাঝারি টমেটো কুচি ১টা।
প্রণালি: ডো বানাতে গরম পানিতে চিনি ও ইস্ট গুলিয়ে আট মিনিট অপেক্ষা করুন। ময়দা ও লবণ মিশিয়ে নিন। গরম পানি দিয়ে মিশিয়ে দুই মিনিট মথে নিন। এবার হাতের সাহায্যে পিজা প্যানে ডোটি চেপে চেপে ছড়িয়ে ১২ থেকে ১৪ ইঞ্চি ক্রাস্ট বানিয়ে নিন।

কড়াইতে তেল গরম করে বাটা মসলা ও গোলমরিচ দিয়ে মাংস ও মাশরুম কষিয়ে সয়া সস দিন। কর্নফ্লাওয়ার দুধে গুলে সেটাও ঢেলে দিয়ে তিন থেকে চার মিনিট রান্না করতে হবে।
পিৎজা প্যান গ্রিজ করে নিয়ে ডোটা বসিয়ে সেট করে নিন। তারপর একে একে টমেটো পিউরে ছড়িয়ে নিতে হবে। এর ওপর গ্রেট করা মোজারেল্লা চিক অর্ধেকটা ও দেশি পনির অর্ধেকটা দিয়ে দিন। পরপর তার ওপর চিকেন গ্রেভি, চিজের বাকি অংশ এবং টমাটো কুচি সাজিয়ে ১৭০ ডিগ্রি সে. তাপমাত্রায় ১৫ মিনিট বেক করুন। এবার আরও তিন থেকে চার মিনিট বেক করলেই তৈরি স্পাইসি চিকেন-মাশরুম পিৎজা।
পেরিপেরি পাস্তা
পেরিপেরি পাস্তা
উপকরণ: জলপাই তেল ৫ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ মাঝারি ১টা, রসুন কুচি ২ কোয়া, কুচি করা মুরগির বুকের মাংস পাতলা ও ছোট করে কাটা ৫০০ গ্রাম, মাশরুম ছোট কাটের ১০০ গ্রাম, পেরিপেরি সস ২৫০ গ্রাম, কুকিং ক্রিম ২৫০ গ্রাম, রোস্টেড টমেটো ২৫০ গ্রাম, সেদ্ধ করা পাস্তা ৫০০ গ্রাম, লবণ ও গোলমরিচের গুঁড়া পরিমাণমতো।
প্রণালি: পাত্রে তেল গরম করে পেঁয়াজ প্রথমে দুই মিনিট ভাজুন। এরপর রসুন দিয়ে এক মিনিট ভেজে নিন। এবার মাংস ও মাশরুম দিয়ে উচ্চতাপে দুই মিনিট ভেজে পেরিপেরি সস মিশিয়ে এক মিনিট রান্না হতে দিন। এবার পাস্তা দিয়ে নাড়াচাড়া করে ক্রিম ও রোস্টেড টমেটো মিশিয়ে দিন। নামিয়ে গরম-গরম পরিবেশন করুন।


রসাল বার্গার
রসাল বার্গার
উপকরণ
বার্গার প্যাটির জন্য: মাংসের কিমা আধা কেজি, পেঁয়াজবাটা ২ টেবিল চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, বারবিকিউ সস ২ টেবিল চামচ, কালো গোলমরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, জায়ফল-জয়ত্রী গুঁড়া সিকি চা-চামচ, লবণ আধা চা-চামচ বা পরিমাণমতো, তেল ৩ টেবিল চামচ।
প্রণালি: তেল ছাড়া বাকি সব উপকরণ কিমার সঙ্গে মিশিয়ে পাঁচ ভাগ করে পাঁচটি প্যাটি বানিয়ে নিন। এক ঘণ্টা ফ্রিজে রাখুন। ননস্টিক প্যানে তেল ব্রাশ করে নিন৷ এবার আলাদা আলাদা করে প্যাটি ভাজুন। ৩০ সেকেন্ড পরপর প্যাটিগুলো উল্টে তেল ব্রাশ করে দিন৷ তা না হলে বাইরের অংশটাও পুড়ে যাবে, ভেতরেও কাঁচা থেকে যাবে। এভাবে প্রতিটা প্যাটি পাঁচ মিনিট চুলার উচ্চ তাপে ভেজে নেবেন।
রসাল বার্গার তৈরির জন্য
উপকরণ: বনরুটি ৫টি, মাখন ৫ চা-চামচ, লেটুসপাতা ও পেঁয়াজের পাতলা টুকরো (এটা কাঁচাও হতে পারে, আবার সামান্য তেলে নরম করে ভেজেও নিতে পারেন), বার্গার চিজ ও বাঁধাকপি কুচি ১ কাপ, লবণ সামান্য।

সসের জন্য: মেয়োনেজ ১ টেবিল চামচ, বারবিকিউ সস ১ চা-চামচ, মাস্টার্ড সস ২/৩ চিমটি, গোলমরিচের গুঁড়া পরিমাণমতো৷ সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে সস তৈরি করে নিন৷
প্রণালি: বনরুটি মাঝ বরাবর কেটে শুকনা তাওয়ার মাঝখানে রেখে হালকা টোস্ট করে নিন৷ এবার তাওয়া থেকে নামিয়েই টোস্টের একদিকে আধা চা-চামচ মাখন লাগিয়ে নেবেন। বনের ওপরে লেটুসপাতা দিন৷ একে একে পেঁয়াজের টুকরো, বার্গারের প্যাটি, সস, চিজ, বাঁধাকপি কুচি রেখে আরেকটু সস দিন৷ এবার বনের আরেকটি অংশ দিয়ে বার্গার বানানো শেষ করুন। টুথপিক এঁটে দিন মাঝ বরাবর।
মচমচে ফ্রায়েড চিকেন উপকরণ
মচমচে ফ্রায়েড চিকেন উপকরণ
মুরগি ম্যারিনেটের জন্য: ব্রয়লার মুরগি ১ কেজি ওজনের ১টি (চামড়াসহ ৪ টুকরা), ঘন দুধ আধা কাপ, স্বাদ লবণ ১ চা-চামচ, বেকিং সোডা ১ চা-চামচ, কর্নফ্লাওয়ার ২ টেবিল চামচ, চিলি সস ১ টেবিল চামচ, ওয়েস্টার সস ১ চা-চামচ, কালো গোলমরিচের গুঁড়া ১ চা-চামচ, লবণ ২ চা-চামচ ও লেমন জেস্ট ২ টেবিল চামচ৷
সবকিছু দিয়ে মুরগির টুকরোগুলো অন্তত ১০ ঘণ্টা ম্যারিনেট করে রাখুন।
ব্যাটারের জন্য: ময়দা ১ কাপ, লাল গুঁড়া মরিচ ১ চা-চামচ, কর্ন ফ্লাওয়ার ২ টেবিল চামচ, চিলি সস ১ চা-চামচ, লবণ আধা চা-চামচ ও পানি পরিমাণমতো। পানি দিয়ে গুলে ব্যাটার রেডি করে রাখুন।
কোটিংয়ের জন্য: কর্নফ্লেক্স (আধা ভাঙা) ১ কাপ, ব্রেড ক্রাম্বস ১ কাপ, স্বাদ লবণ আধা চা-চামচ ও প্যাপরিকা পাউডার ১ চা-চামচ৷ একটা প্লাস্টিকের ব্যাগে সবকিছু ঢেলে ভালোভাবে ঝাঁকিয়ে মিশিয়ে নিন।
ভাজার জন্য: তেল ১ লিটার।

প্রণালি: প্রথমেই মুরগির টুকরাগুলো ১৫ মিনিট স্টিম করে নিতে হবে। এবার একটা একটা করে মুরগির টুকরো ব্যাটারে ডুবিয়ে কোটিংয়ের ব্যাগে ভরে ভালো করে ঝাঁকিয়ে নিন। এবার ডুবোতেলে পাঁচ মিনিট ভেজে তুলে তেল ঝরিয়ে নিন। মচমচে বা ক্রিসপি কোটিংয়ের জন্য আবার ভাজা মুরগির টুকরোগুলো ব্যাটারে ডুবিয়ে নিন। আবার কোটিং দিয়ে ডুবোতেলে সোনালি করে ভেজে তুলুন এবং তেল ঝরিয়ে নিন। সসের সঙ্গে গরম-গরম পরিবেশন করুন।
স্পাইসি চিকেন শাশলিক
 স্পাইসি চিকেন শাশলিক
উপকরণ: মুরগির বুকের মাংস (একটু ভারী কিউব করে কাটা) আধা কেজি, মরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, গোলমরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, চিলি সস ১ চা-চামচ, টমেটো সস ১ টেবিল চামচ, লেবুর রস ২ টেবিল চামচ, রসুনবাটা আধা চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, অরেগানো আধা চা-চামচ অথবা পুদিনাপাতাবাটা ১ চা-চামচ, পেঁয়াজ ও গাজর (ভারী কিউব করে কাটা) প্রয়োজনমতো ও সয়াবিন বা সরিষার তেল ২ টেবিল চামচ৷
প্রণালি: গাজরের টুকরোগুলো আধা সেদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে নিন। ঠান্ডা করুন। মুরগির টুকরোগুলো ধুয়ে পানি ঝরিয়ে কিচেন টাওয়েল দিয়ে মুছে নিন। এবার তেল ছাড়া সব উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে দুই ঘণ্টা ম্যারিনেট করুন। শাশলিক কাঠিতে একে একে গাজর, পেঁয়াজ ও মুরগির টুকরো দিয়ে কাঠির শেষ মাথা পর্যন্ত গেঁথে নিন। এবার সব শাশলিকে তেল ব্রাশ করে ননস্টিক প্যানে সেঁকে নিন। মাঝারি আঁচে দুই পাশে ১৫ মিনিট সেঁকে নিন। মাঝে মাঝে তেল ব্রাশ করে দিন৷ একটু পোড়া পোড়া হলে নামিয়ে নিয়ে গরম-গরম পরিবেশন করুন৷ শাশলিক কাঠিগুলো ব্যবহারের আগে অন্তত ৩০ মিনিট ঠান্ডা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এতে কাঠিগুলো পুড়ে কালচে হয়ে যাবে না।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.