শিল্পীরা সমাজের শক্তি আর সুন্দরের প্রতিচ্ছবি। সামাজিক মানুষের উদ্যম আর আবেগ ধরা আছে তাদের বুকে।





 কিন্তু শিল্পীর জীবনে কখনও কখনও নেমে আসে দুর্দিন। তেমনি সময়ে প্রয়োজনীয় শক্তি আর সমর্থনে শিল্পীর পাশে দাঁড়ানোর প্রত্যয় নিয়ে আত্মপ্রকাশ ঘটল ‘শিল্পীর পাশে ফাউন্ডেশনে’র। এই প্রয়াসের উদ্যোক্তা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক।

 শনিবার রাজধানীর গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেলে দুই কোটি ১০ লাখ টাকার ফান্ড নিয়ে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করেছে ফাউন্ডেশনটি। এ ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে বিপন্ন, দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত মৃত্যুপথযাত্রী শিল্পীদের সহযোগিতা করা হবে।

প্রথম প্রয়াস হিসেবে উদ্বোধনী আয়োজনে তিন শিল্পীর পাশে দাঁড়িয়েছে সংগঠনটি।

বাংলার সঙ্গীত ভুবনের নীল মনিহার খ্যাত অসংখ্য জনপ্রিয় গানের সুরস্রষ্টা লাকী আখন্দকে ৪০ লাখ টাকা, বাংলা গানের সুরের বরপুত্র সুরকার আলাউদ্দীন আলীকে ২০ লাখ এবং কণ্ঠশিল্পী শাম্মী আখতারকে ১০ লাখ টাকার আর্থিক সহায়তা প্রদানের মধ্য দিয়ে শিল্পীর পাশে ফাউন্ডেশনের পথচলার সূচনা হয়। তাদের হাতে চেক তুলে দেন ফাউন্ডেশনের অন্যতম ট্রাস্টি অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ ও বরেণ্য কণ্ঠশিল্পী ফেরদৌসী রহমান। এ সময় ফাউন্ডেশনের মূল উদ্যোক্তা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের সূচনা বক্তব্যে আনিসুল হক বলেন, ‘শিল্পীরা সমাজের মুখচ্ছবি। বাংলাদেশের শিল্পীরা চিরকাল আমাদের ভালোবাসার, আমাদের গৌরব। বিশ্বের বুকে তারাই আমাদের প্রতিনিধি, প্রজন্মের প্রেরণা। শিল্পীরা ভালো না থাকলে সমাজের পক্ষে ভালো থাকা অসম্ভব। এখন থেকে আর কোনো শিল্পীকে যাতে তার শিল্প সাধনায় বাধাগ্রস্ত হতে না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখবে শিল্পীর পাশে ফাউন্ডেশন।’

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ফাউন্ডেশনের অন্যতম ট্রাস্টি সদস্য- অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ, কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন, চিত্রশিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের লিটু, চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর ও কণ্ঠশিল্পী ফেরদৌসী রহমান।

আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ বলেন, ‘শিল্পীরা হচ্ছেন মর্যাদাসম্পন্ন মানুষ। তারা কখনোই দুস্থ হতে পারেন না। সমাজের জন্য, মানুষের জন্য তারা তাদের সবটুকু উজাড় করে দেন। মানুষের মধ্যে আনন্দ বিলিয়ে দেওয়াই হচ্ছে তাদের সাধনা। সবার যেমন সব সময় ভালো যায় না, তেমনি শিল্পীদের ক্ষেত্রে এমনটি হয়। অনেক সময় দুঃখ-দুর্দশায় পড়তে হয় তাদের। তখন ব্যাঘাত ঘটে সাধনায়। এখন থেকে কণ্ঠশিল্পী, অভিনয় শিল্পী, লেখক-সাংবাদিকসহ সব শিল্পীর বিপদ-আপদে পাশে দাঁড়াবে এ সংগঠনটি। সবার সহযোগিতা পেলে ফাউন্ডেশনটি আরও বৃহৎ হবে।’

সেলিনা হোসেন বলেন, ‘আমাদের শিল্পীদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ফাউন্ডেশনের উদ্যোক্তাদের ধন্যবাদ জানাই। সমাজ গঠনে ও মানবিক মূল্যবোধ তৈরিতে শিল্পীদের অবদান অনস্বীকার্য। তাই শিল্পী কখনোই দুস্থ হতে পারে না। মর্যাদা অক্ষুণ্ন রেখে শিল্পীদের পাশে দাঁড়ানোর যে অঙ্গীকার নিয়ে ফাউন্ডেশনের যাত্রা শুরু হলো তার সুফল পাবেন শিল্পীরা।’

মুস্তাফা মনোয়ার বলেন, ‘পাকিস্তান আমল থেকে স্বপ্ন দেখতাম এ ধরনের একটি সংগঠন করার। এ ফাউন্ডেশন সেই স্বপ্ন পূরণ করল।’

আবুল খায়ের লিটু বলেন, ‘উদ্যোগ নিলে যে অনেক কিছু করা সম্ভব, তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ এই ফাউন্ডেশন। ফাউন্ডেশনের ফান্ড ৩০-৩৫ কোটি টাকা হলে ভালো হতো। যে যার অবস্থান থেকে হাত বাড়িয়ে দিন।’

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানকে চেয়ারম্যান করে ‘শিল্পীর পাশে ফাউন্ডেশনে’র ১৯ সদস্য বিশিষ্ট বোর্ড অব ট্রাস্টিজ গঠন করা হয়েছে। ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান হচ্ছেন স্কয়ার টয়লেট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার ওমর সাদাত, কোষাধ্যক্ষ কণ্ঠশিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদী। ট্রাস্টি সদস্য- বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান সেলিনা হোসেন, চিত্রশিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, কণ্ঠশিল্পী ফেরদৌসী রহমান, শিক্ষক-কথাশিল্পী ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের লিটু, নাট্যজন আলী যাকের, চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দীন ইউসুফ, এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ, বিজিএমইএ সভাপতি মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান, সঙ্গীতশিল্পী ফয়সাল সিদ্দিকী বগি ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক।

অনুষ্ঠানে বাংলার দুই কৃতী শিল্পী লাকী আখন্দ ও আলাউদ্দীন আলীর সঙ্গীত জীবন ও কর্ম নিয়ে আলাদা আলাদা বায়োপিক প্রদর্শন করা হয়। অসুস্থ হওয়া সত্ত্বেও দুটি গান পরিবেশন করেন লাকী আখন্দ। ছিল হ্যাপি টাচ ব্যান্ডের গান। আলাউদ্দীন আলীর সুরে গান পরিবেশন করেন সামিনা চৌধুরী। এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন সুরকার আলাউদ্দীন আলী।

ফাউন্ডেশনের আত্মপ্রকাশ উপলক্ষে এ অনুষ্ঠান শিল্পীদের মিলনমেলায় পরিণত হয়। এ উদ্যোগকে স্বাগত জানাতে এসেছিলেন আইয়ুব বাচ্চু, মাকসুদুল হক, জুয়েল আইচ, সামিনা চৌধুরী, ফাহমিদা নবী, হামিম আহমেদ, রফিকুল আলম, আবিদা সুলতানা, ফুয়াদ নাসের বাবু, লাবু রহমান, এসআই টুটুল, শেখ সাদী খান, নওয়াজেশ আলী খানসহ অনেকে।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.