বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর দেশ যুক্তরাষ্ট্র। তাই এ দেশের অনেক কিছু নিয়ে বিশ্ববাসীর আগ্রহ রয়েছে। বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। কেননা অনেকের মতে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট যে হবেন তার ওপরই নির্ভর করে পরবর্তী বিশ্ব রাজনীতি কোন দিকে বাঁক নেবে। 





তাই জেনে নেওয়া যাক কীভাবে নির্বাচিত হন ক্ষমতাধর রাষ্ট্রটির প্রেসিডেন্ট।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন পদ্ধতি কিছুটা জটিল। কৌশলগতভাবে পরোক্ষ ভোটে নির্বাচিত হন প্রেসিডেন্ট। প্রতি চার বছর অন্তর অনুষ্ঠিত হয় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন।

সাধারণত চার দিয়ে বিভাজ্য বছরগুলোর নভেম্বর মাসের প্রথম সোমবারের পরের মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয় নির্বাচন। এ প্রথা অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের ৫৮তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর।

প্রাথমিক ধাপ

যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাচনে অংশ নিতে প্রার্থীকে অবশ্যই তিনটি শর্ত পূরণ করতে হয়। প্রথমত, জন্মসূত্রে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক হতে হবে। দ্বিতীয়ত, ৩৫ বছর বয়সী এবং তৃতীয়ত অন্তত ১৪ বছর যুক্তরাষ্ট্রে বাস করতে হবে। এছাড়াও যিনি পূর্বে দুইবার প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি আর প্রার্থী হতে পারবেন না।

যুক্তরাষ্ট্রে ৫০টি অঙ্গরাজ্যে দীর্ঘ এক মাসব্যাপী ভোটের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী নির্ধারণ করা হয়। এ জন্য আইওয়া রাজ্যে রাজনৈতিক নেতাদের সমিতিতে নির্বাচন সম্পর্কিত আলোচনা করা হয়। সর্বোচ্চ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দলের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে হয়।

দলীয় সম্মেলন

প্রাথমিক পদক্ষেপ সম্পন্ন হওয়ার পর ডেমোক্র্যাটিক ও রিপাবলিকান দল প্রার্থী মনোনয়নে সম্মেলনের আয়োজন করে। ১৮ জুলাই ওহিওতে রিপাবলিকান ও তার এক সপ্তাহ পর ফিলাডেলফিয়ায় ডেমোক্র্যাটিক সমর্থকদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। চার দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী প্রতিনিধিদের মাধ্যমে প্রার্থীকে বাছাই করা হয়।

তিন পর্বে প্রেসিডেন্ট বিতর্ক

নির্বাচনের আগে তিন পর্বের বির্তকে অংশ নিতে হয় প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীদের। এ বিতর্ক স্বাধীন কমিশন কর্তৃক পরিচালিত হয়। ১৯৭৬ সাল থেকে ডেমোক্রেট ও রিপাবলিকান প্রার্থী সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে এ বিতর্কে অংশগ্রহণ করেন।

ইলেকটোরাল কলেজ

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ইলেকটোরাল কলেজ নামের একটি নির্বাচনী পদ্ধতি। এটির কোনো প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো নেই।

ইলেকটোরাল কলেজ পদ্ধতি আসলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে একজনকে বেছে নেয়ার প্রক্রিয়া। ইলেকটোরাল কলেজ পদ্ধতিতে যুক্তরাষ্ট্রে মোট নির্বাচক বা ইলেকটরের সংখ্যা ৫৩৮ জন। এই ইলেকটরদের সরাসরি নির্বাচিত করে নিবন্ধিত ভোটাররা। প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে একজন প্রার্থীকে কমপক্ষে ২৭০টি ইলেকটরাল ভোট নিশ্চিত করতে হয়।

ভোট প্রদান পদ্ধতি

একজন ভোটার নিজের পছন্দের প্রেসিডেন্টকে নির্বাচিত করতে মূলত ইলেকটর নির্বাচনের জন্য ভোট দেন। আর এ ইলেকটরদের ভোটেই নির্বাচিত হন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্ট।

ফলাফল

জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে কংগ্রেসের একটি যৌথ অধিবেশনে ইলেকটোরাল ভোট গণনা করা হয়। সিনেটর সভাপতির তদারকিতে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। আর নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্ট ২০ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ গ্রহণ করেন। সূত্র:  যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ওয়েসসাইট, বিবিসি

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.