ঘরে বসে আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার কার্যক্রম ১ নভেম্বর থেকে শুরু হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় সরকারি ১২তলা ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান।


 তিনি বলেন, 'করদাতাবান্ধব' এ পদ্ধতি চালুর মধ্য দিয়ে বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল। আধুনিক এ ব্যবস্থায় কর বিভাগের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বাড়বে, পাশাপাশি সময় ও শ্রমের সাশ্রয় হবে করদাতাদের। 




বর্তমানে বছরে ১২ থেকে ১৩ লাখ ব্যক্তি আয়কর রিটার্ন দিচ্ছেন। এনবিআরের আওতাধীন কর অফিস (সার্কেল অফিস) রয়েছে ৬৪৯টি। ১ নভেম্বর অনলাইন চালু হওয়ার পর, কর অফিসে না গিয়ে ঘরে বসেই তাদের নিজ রিটার্ন জমা দিতে পারবেন করদাতারা। এ ব্যবস্থায়, একটি রিটার্ন জমা দিতে সর্বোচ্চ ১৫ মিনিট সময় লাগবে। এনবিআর বলেছে, অনলাইনের পাশাপাশি প্রচলিত পদ্ধতিতেও রিটার্ন জমা দেওয়া যাবে। আগামী ১ নভেম্বর থেকে সারাদেশে সাত দিনের আয়কর মেলা শুরু হচ্ছে। সপ্তম বারের মতো আয়োজিত মেলার প্রথম দিনে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনবিআরের বাস্তবায়নাধীন নতুন ভবন প্রাঙ্গণে অনলাইনে রিটার্ন জমা দেওয়ার পদ্ধতি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। 



মূলত ২০০৮ সালে অনলাইনে রিটার্ন জমা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছিল এনবিআর। তখন রাজধানীর কর অঞ্চল ৮-এ পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়েছিল এ সেবা। পর্যায়ক্রমে সারাদেশের অন্যান্য কর অঞ্চলে অটোমেশনের আওতায় আনার পরিকল্পনা ছিল। এক বছর যেতে না যেতেই ওই উদ্যোগ ভেস্তে যায়। এর পর নানা জটিলতার মধ্যে ২০১১ সালে এ পদ্ধতি চালুর লক্ষ্যে নেওয়া হয় 'স্ট্রেনদেনিং গভর্ন্যান্স ম্যানেজমেন্ট প্রজেক্ট' (এসজিএমপি) নামের একটি প্রকল্প। এ প্রকল্প বাস্তবায়নে ৫১ কোটি টাকা দেয় এডিবি। তার পর থেকেই কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে নেয় এনবিআর। চলতি বছরের ডিসেম্বরে চালুর লক্ষ্য থাকলেও এক মাস আগেই তা চালু করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে বহু দিনের স্বপ্ন পূরণ হলো রাজস্ব বোর্ডের।

গতকালের অনুষ্ঠানে অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এ সময় অনলাইন কার্যক্রমের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন এনবিআরের সদস্য ও প্রকল্প পরিচালক কালীপদ হালদার। বর্তমানে এনবিআরের অধীনে বড় করদাতারা বৃহৎ করদাতা ইউনিটের আওতায় অনলাইনে রিটার্ন জমা দিতে পারেন। নতুন পদ্ধতিতে সারাদেশের সাধারণ করদাতারাও তাদের বার্ষিক রিটার্ন দাখিল করতে পারবেন। তবে অনলাইনে রিটার্ন জমা দেওয়ার সুযোগ থাকলেও তার সঙ্গে কর পরিশোধ করা যাবে না। ইলেকট্রনিক বা ই-পেমেন্টে কর দিতে হলে যে ধরনের অবকাঠামো দরকার তা সম্পন্ন করতে পারেনি এনবিআর এখনও। চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে সরকারি সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে কাজ চলছে। প্রকল্প পরিচালক বলেন, প্রচলিত ব্যবস্থায় ব্যাংকে চালান মাধ্যমে কর পরিশোধ করা যাবে। ই-পেমেন্ট সিস্টেম চালু হলে ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে তা পরিশোধ করা যাবে। তবে অনুষ্ঠানে অর্থ প্রতিমন্ত্রী ই-পেমেন্ট সিস্টেম চালু না হওয়ায় সংশয় প্রকাশ করে বলেন, এটা না হলে অনলাইনে আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার পুরোপুরি সুফল জনগণ পাবে না। 

অনলাইনে রিটার্ন জমা দেওয়ার জন্য একটি ওয়েবসাইট খুলেছে এনবিআর। এটি হলো_ িি.িবঃধীহনৎ.মড়া.নফ। উলি্লখিত সাইটে ক্লিক করলেই বাংলায় ও ইংরেজিতে রিটার্ন ফরম পাওয়া যাবে। এ জন্য ফরমও সহজ করা হয়েছে।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.