কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে ১ হাজার ৪৭৯ জন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নেওয়া হবে। সম্প্রতি অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট ও বিভিন্ন পত্রিকায় এই নিয়োগসংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান পার্বত্য জেলার অধিবাসীরা এ নিয়োগে আবেদন করতে পারবেন না। ইতিমধ্যে অনলাইনে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে। আবেদন প্রক্রিয়া চলবে ৩০ জুন সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত।



কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের চাকরী বিজ্ঞপ্তি



যেসব জেলার প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন না
মানিকগঞ্জ, শেরপুর, নাটোর, বগুড়া, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, মেহেরপুর, নড়াইল, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, ফরিদপুর ও রাজবাড়ী জেলায় শূন্য পদ না থাকায় এসব জেলার প্রার্থীরা এই নিয়োগে আবেদন করতে পারবে না। তবে এতিমখানা নিবাসী ও প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে সব জেলার প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের যোগ্যতা
এ পদে যাঁরা বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক স্বীকৃত ইনস্টিটিউট থেকে কৃষি বিজ্ঞানে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা উত্তীর্ণ হয়েছে সেসব প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। সাধারণ প্রার্থীদের বয়স ৩১ মে ২০১৬ তারিখে ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। আর মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের পুত্র-কন্যা এবং প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের জন্য বয়স ১৮ থেকে ৩২ বছর থাকতে হবে। প্রার্থীকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।

যেভাবে আবেদন করবেন
আগ্রহী প্রার্থীদের টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ওয়েবসাইট http://dae. teletalk.com.bd অথবা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট www.dae.gov.bd এর মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত নির্ধারিত আবেদনপত্র পূরণ করে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম এবং ফি জমাদান সম্পন্ন করতে হবে। উল্লিখিত ওয়েবসাইট ওপেন করলে ‘উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা’ পদে নিয়োগ ২০১৬ এর বিজ্ঞপ্তি পাওয়া যাবে। এই লিংকে ক্লিক করলে সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট এগ্রিকালচার অফিসার রেডিও বাটন দৃশ্যমান হবে। সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট এগ্রিকালচার অফিসার রেডিও বাটন সিলেক্ট করে Next বাটনে ক্লিক করলে অ্যাপ্লিকেশন ফরম পাতায় প্রবেশ করা যাবে। www.dae.gov.bd এই ওয়েবসাইটে অনলাইন আবেদনপত্র পূরণের বিষয়ে বিস্তারিত নির্দেশনা পাওয়া যাবে। এ ছাড়া নির্ভুলভাবে আবেদন করার ক্ষেত্রে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আইসিটি ব্যবস্থাপনা অনুশাখা এবং জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের দপ্তর থেকে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি ও সহযোগিতা পাওয়া যাবে।

নির্বাচন পদ্ধতি
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক (পার্সোনেল) ও সদস্যসচিব বিভাগীয় বাছাই কমিটি মো. মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, প্রার্থীদের আবেদনপত্র যাচাই-বাছাই করে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ করা হবে। তিনি বলেন, লিখিত পরীক্ষা হবে ৭০ নম্বরে। আর মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হবে ৩০ নম্বরে। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হলে প্রার্থীকে অবশ্যই ৩৫ নম্বর পেতে হবে। লিখিত পরীক্ষার তারিখ ও স্থান অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট অথবা প্রার্থীর মোবাইল নম্বরে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

পরীক্ষা প্রস্তুতি
২০১১ সালে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা পদে নিয়োগ পান মাহমুদা। লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি সম্পর্কে তিনি বলেন, লিখিত পরীক্ষায় বেশি প্রশ্ন পাওয়া যাবে কৃষি সম্পর্কিত বিষয়ের ওপর। তাই কৃষি বিষয়ে ভালো করতে হলে প্রার্থীকে কৃষি ডিপ্লোমার ওপর বইগুলো ভালো করে পড়তে হবে। এ ছাড়া বাংলা, ইংরেজি, গণিত ও সাধারণ জ্ঞান এসব বিষয় থেকেও প্রশ্ন থাকবে। তাই এসব বিষয়ে ভালো করতে হলে নবম-দশম শ্রেণির পাঠ্যবইগুলো পড়তে হবে। সাধারণ জ্ঞানের জন্য নিয়মিত পত্রিকা পড়া, বাংলাদেশের ইতিহাস, মুক্তিযুদ্ধ, জলবায়ু, সংস্কৃতি, খেলাধুলা, বিভিন্ন জেলার আয়তন, অর্থনীতি ইত্যাদি সম্পর্কে অবগত থাকতে হবে। বিভিন্ন দেশের মুদ্রা, দিবস, পুরস্কার ও সম্মাননা, সাম্প্রতিক ঘটনা জানা থাকলে প্রশ্ন পাওয়া যেতে পারে। এ ছাড়া বিগত বছরের এই পদের নিয়োগ পরীক্ষাগুলোর প্রশ্নপত্র দেখলেও ধারণা পাওয়া যাবে।

কাজের ধরন
একটি ইউনিয়নে তিনটি ব্লক তদারকির জন্য একজন করে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা দায়িত্বে নিয়োজিত থাকেন। তাঁদের কৃষকদের নিয়েই কাজ করতে হয়। উদ্ভাবিত সব কৃষিপ্রযুক্তি কৃষকদের মাঝে সরবরাহ করা এবং মাঠপর্যায়ের সব সমস্যা সমাধানের জন্য তাঁরা কাজ করেন। এ ছাড়া কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের পক্ষে তৃণমূল পর্যায়ে অতন্দ্র প্রহরীর ন্যায় ফসলের তদারকি করে থাকেন। ভালো ফসল উৎপাদনে কৃষকদের নানা ধরনের তথ্য ও কারিগরি সহায়তা দিয়ে নানাভাবে সহযোগিতা করাও তাদের কাজ। প্রয়োজনে কৃষকদের ফসল উৎপাদনে কোনো ধরনের সমস্যা সমাধানে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার মাধ্যমেও বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে কৃষকদের সহযোগিতা করে থাকেন এসব কর্মকর্তারা।

বেতন পদোন্নতি
চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত একজন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ১২ হাজার ৫০০ থেকে ৩০ হাজার ২৩০ টাকা স্কেলে বেতন পাবেন। এ ছাড়া চাকরি স্থায়ী হওয়ার পর আরও অন্যান্য সুবিধা যেমন, ভ্রমণ ভাতা, প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্র্যাচুইটিসহ ইত্যাদি সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যাবে। অন্যান্য চাকরির মতো এ পদেও পদোন্নতির সুযোগ আছে। এ পদ থেকে জ্যেষ্ঠতা, যোগ্যতা ও বিভিন্ন পরীক্ষার মাধ্যমে পদোন্নতি পেয়ে সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার, কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার ও উপজেলা কৃষি অফিসার হওয়ার সুযোগ পাওয়া যাবে বলে জানান মোয়াজ্জেম হোসেন।




Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.