আপনার কাজ শেখার তালিকায় নিশ্চয়ই বুনন কাজটি নেই। কিন্তু এটি থাকা উচিৎ। এটি শুধুমাত্র দাদী নানীদের কাজ এটা ভাবা ঠিক নয়। বুনন কাজের শেষে আপনি আরামদায়ক একটি পোশাক পরতে পারবেন শুধু তার জন্যই নয়। 

 বুনন কাজের অপ্রত্যাশিত কিছু উপকারিতা
 বুনন কাজের আছে অনেক উপকারিতা যা জানলে আপনি নিজেই অবাক হবেন। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক বুনন কাজের অপ্রত্যাশিত উপকারিতাগুলো সম্পর্কে।

১। গর্বের অনুভূতি দেয়

খুব বেশি মানুষ বুননের কাজটি করতে পারেনা। তাই তাদেরকে যখন আপনি এই কাজটি দেখাবেন তখন তারা আপনার এই কাজটিকে দেখে ম্যাজিকের মতোই বিস্মিত হবেন। তাদের মধ্য থেকে অনেকেই হয়তো আপনাকে একটি মাফলার বা একটি টুপি বানিয়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ করবে। যা আপনি অনায়াসেই তৈরি করে দিতে পারেন।

২। মেডিটেশনের মতোই উপকারি

বুনন কাজটির মাধ্যমে আপনি রিল্যাক্স হতে পারেন। সহজ বুনন প্রক্রিয়াটির মাধ্যমে আপনি একই রকম ফোঁড় বারবার দিচ্ছেন ফলে আপনার মাসল মেমোরি ব্যবহার হয় এখানে। এর ছন্দ এবং পুনরাবৃত্তিমূলক গতি মেডিটেশনের মতোই উপকারি প্রভাব ফেলে আপনার মনের উপর। এই ছন্দময় গতি এবং ফোকাসের অনুভূতি আপনাকে উদ্বিগ্নতা, বিষণ্ণতা ও মানসিক চাপ থেকে দূরে সরাতে  সক্ষম হয়। বুননের জন্য বসে থাকার ফলে আপনার হৃদস্পন্দন কমে যায় এবং আপনার রক্তচাপ ও  কমে। যদি আপনি উদ্বিগ্নতায় ভুগেন বা বিষণ্ণতা অনুভব করেন তাহলে উলের কাঁটা নিয়ে কাজ শুরু করে দিন দেখবেন খুব সহজেই এগুলোর প্রভাব থেকে মুক্ত হতে পারবেন।

৩। মটর ফাংশনের উন্নতি ঘটায় 

যেহেতু বুনন কাজটি সমস্ত মস্তিষ্ককেই উদ্দীপিত করে তাই এটি পারকিনসন্স রোগের ক্ষেত্রে সহযোগিতা করতে পারে মটর ফাংশনের উন্নতি ঘটানোর মাধ্যমে। বুনন কাজটি মটর ফাংশনের উন্নতি ঘটানোর পাশাপাশি ব্যথার উপসর্গ কমতেও সাহায্য করে। মায়ো ক্লিনিকের মতে, যে সমস্ত বয়স্ক মানুষেরা কারুশিল্পের (বুনন সহ) সাথে যুক্ত থাকে তাদের মধ্যে ৩০-৫০% এর “মাঝারি  ধরণের জ্ঞানীয় পতন” কম হয়, যারা করেন না তাদের তুলনায়।  

৪। আরথ্রাইটিস প্রতিরোধে সাহায্য করে

মস্তিস্ককে স্বাস্থ্যবান রাখার জন্য যেমন মস্তিস্ককে বেশি ব্যবহার করতে হয় তেমনি জয়েন্টকে স্বাস্থ্যবান রাখার জন্যও জয়েন্টকে বেশি বেশি ব্যবহার করা প্রয়োজন। ডা. বেরনের মতে, আপনার আঙ্গুলগুলোকে আস্তে আস্তে ব্যবহার করলে তরুণাস্থি গঠিত হয় এবং এরা শক্তিশালী হয়। পুরোনো কোন আঘাতের ব্যথা কমতেও সাহায্য করে বুনন কাজ। যদি আপনার আরথ্রাইটিস থেকে থাকে তাহলে ডা. বেরন পরামর্শ দেন, আপনার হাতগুলো গরম পানিতে ভিজিয়ে নিয়ে বড় সুঁই দিয়ে কিছু একটা বানানো শুরু করুন।

তাই আজই শুরু করুন বুনন কাজ। যদি না পারেন তাহলে এর প্রশিক্ষণ নিয়ে নিতে পারেন আপনার কাছাকাছি কোন প্রতিষ্ঠান বা জানা কোন ব্যক্তির কাছ থেকে।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.