সহিংসতা, গোলাগুলি, প্রাণহানি, কেন্দ্র দখল, জাল ভোট, ভোট বর্জন—সবই হয়েছে চতুর্থ পর্বের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গতকাল শনিবার নিহত হয়েছেন ছয়জন।
এর মধ্যে কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া ও নরসিংদীর রায়পুরায় কেন্দ্র দখল করতে গিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় মারা যান দুজন। রাজশাহীর বাগমারায় সরকারি দলের দুই পক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে পুলিশ গুলি ছোড়ে। এতে দুজন মারা যান। ঠাকুরগাঁওয়ে সংঘর্ষের সময় পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারান একজন। আর গাইবান্ধায় পুলিশ-বিজিবির সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন একজন।
গত ২২ মার্চ প্রথম দফার ইউপি নির্বাচন শুরু হওয়ার পর থেকে গতকালের পাঁচজনসহ এ পর্যন্ত নির্বাচনী সহিংসতায় ৬৩ জনের প্রাণহানি ঘটল।
কাল চতুর্থ ধাপের নির্বাচনে সারা দেশে ৭০৩টি ইউনিয়নের ৬ হাজার ৭২৭টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হয়। নির্বাচন কমিশন অনিয়মের কারণে ৫১টি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করেছে। জাল ভোট ও কেন্দ্র দখলের অভিযোগে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের অনেকেই ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।
 প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে দেখা যায়, সব জেলাতেই ভোট গ্রহণের সময় কম-বেশি সংঘাত-সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বেশি সংঘর্ষ হয়েছে চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, নোয়াখালী, ফেনী, ঠাকুরগাঁও, মুন্সিগঞ্জ, নরসিংদী, শেরপুর, লক্ষ্মীপুর, মৌলভীবাজার, চাঁদপুর, টাঙ্গাইল, মেহেরপুর ও কুড়িগ্রামে। এসব ঘটনায় আহত হয়েছেন সহস্রাধিক। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে পুলিশ ও নির্বাচনী কর্মকর্তারাও আছেন। মূলত কেন্দ্র দখল, জাল ভোট প্রদান ও প্রভাব বিস্তারের জের ধরেই সংঘর্ষের সূত্রপাত। আর এতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নেতৃত্ব দিয়েছেন সরকারি দলের নেতা-কর্মীরা। প্রায় সব জেলাতেই নৌকার পক্ষে প্রকাশ্যে সিল মারার ঘটনা ঘটেছে। রাতেই বাক্স ভরে রাখার কারণে চেয়ারম্যানের ব্যালট ফুরিয়ে যায় কিছু কিছু কেন্দ্রে। অনেক স্থানে ভোটারদের চেয়ারম্যান প্রার্থীর ব্যালট না দিয়ে শুধু সদস্যপদের ব্যালট দেওয়ারও ঘটনা ঘটেছে।
চতুর্থ ধাপের ভোট শেষে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে বিচ্ছিন্ন কিছু সংঘর্ষের ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক হয়েছে। সামনের দুই ধাপে আরও শান্তিপূর্ণ হবে।
তৃতীয় ধাপের নির্বাচনের তুলনায় চতুর্থ ধাপে এসে নির্বাচন কমিশন পিছিয়েছে না এগিয়েছে—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে সিইসি বলেন, চতুর্থ ধাপে সহিংসতা ও ভোট কারচুপির যেসব ঘটনা ঘটেছে, তাতে মনে হয় না নির্বাচন কমিশন পিছিয়ে পড়েছে। তিনি আরও বলেন, গণমাধ্যম ও মাঠ কর্মকর্তাদের তথ্যের ভিত্তিতে বিভিন্ন জায়গায় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ৫১টি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ বন্ধ করা হয়েছে। নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের কারণে ৭৯ জনকে ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। কয়েকজনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সামনের ধাপগুলোতে যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে, সে জন্য আরও কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
প্রথম দুই পর্বে বিপুল প্রাণহানির পর তৃতীয় পর্বের ভোটের আগে সরকারি দল আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধিদল নির্বাচন কমিশনে গিয়ে শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণে কঠোর অবস্থান নেওয়ার আহ্বান জানায়।
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ গতকাল দুপুরে দাবি করেন, নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ হচ্ছে। সব দল এতে অংশ নিচ্ছে।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান সাংবাদিকদের বলেছেন, নির্বাচন যেভাবে হচ্ছে, তাতে ভবিষ্যতে নির্বাচন শব্দটি গালি হয়ে যাচ্ছে। এটি আওয়ামী লীগের ঘরোয়া অনুষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।
নিহত ছয়: রাজশাহীর বাগমারার আউচপাড়া ইউনিয়নের হাটগাঙ্গোপাড়ায় আওয়ামী লীগের মিছিলে পুলিশ গুলিতে দুজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। নিহত ব্যক্তির নাম সিদ্দিকুর রহমান (৩০) ও রায়হান আলী (৪৫)। এ ঘটনায় পুলিশসহ কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছেন। সংঘর্ষের সময় আওয়ামী লীগের প্রার্থীর লোকজন ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটান বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। এ সময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীসহ চারটি বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করা হয়।
রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি এম খুরশীদ হোসেন গতকাল রাতে মুঠোফোনে দুজনের মৃত্যুর বিষয় নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগের কর্মী সিদ্দিকুর রহমান গুলিতে মারা গেছেন এবং অজ্ঞাতনামা আরেকজন ককটেল বিস্ফোরণের সময় হৃদ্রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।
কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে তাপস চন্দ্র দাশ (২৫) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। গতকাল বেলা ১১টার দিকে উত্তর চান্দলা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, সাধারণ সদস্য প্রার্থী মোরগ প্রতীকের রেজাউল করিমের অনুসারীদের সঙ্গে চাপকল প্রতীকের সুলতান আহমেদের অনুসারীদের ভোট দেওয়া নিয়ে কথা-কাটাকাটি হয়। এরপর দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। একপর্যায়ে ঘটনাস্থলেই তাপসের মৃত্যু হয়। তাঁর বাড়ি উত্তর চান্দলা গ্রামে।
ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার পাড়িয়া ইউনিয়নের তালডাঙ্গা মাদ্রাসা কেন্দ্রে জাল ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে সদস্য প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন ও শাহ আলমের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশ গুলি ছুড়লে মাহবুব আলম (২৮) নামের এক যুবক মারা যান। তিনি মাছখুড়িয়া গ্রামের আবদুল জব্বারের ছেলে।
নরসিংদীর রায়পুরার পাড়াতলী ইউনিয়নের মধ্যনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আওয়ামী লীগের মনোনীত ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে হোসেন আলী (৫৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হন। তিনি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জাকির হোসেনের সমর্থক। তাঁর বাড়ি মধ্যনগর গ্রামে।

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার আউচপাড়া ইউনিয়নের হাটগাঙ্গোপাড়া বাজারে গতকাল দুই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের সংঘর্ষে পুলিশের গুলিতে নিহত হন আওয়ামী লীগের কর্মী সিদ্দিকুর রহমান। তাঁর স্বজনদের আহাজারি l ছবি: প্রথম আলো
গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ধাপেরহাট ইউনিয়নে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন লেবু মিয়া (৪০) নামের এক ব্যক্তি। তাঁর বাবার নাম আবদুল কাদের। বাড়ি দামদাড়ি গ্রাম। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গতকাল রাত ১১টার দিকে তিনি মারা যান বলে নিশ্চিত করেন হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তারিক হোসেন। ফলাফল ঘোষণার দাবিতে ধাপেরহাট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী রফিকুল ইসলামের সমর্থকরা রাত আটটার দিকে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক দেড় ঘণ্টা অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ও বিজিবি লাঠিপেটা করে এবং বেশ কয়েকটি রাবার বুলেট ছোড়ে। এ সময় সংঘর্ষে লেবু মিয়া ও সাদুল্যাপুর থানার ওসি ফরহাদ ইমরুল কায়েসসহ পাঁচজন পুলিশ সদস্য ও সাতজন বিক্ষোভকারী আহত হন।
নির্বাচন কর্মকর্তাদের অসততা: শেরপুরের ঝিনাইগাতীর হাতীবান্ধা ইউনিয়নের এক কেন্দ্রে ঘুষ লেনদেনের অভিযোগে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ও ইউপি সদস্য প্রার্থীকে কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ভোটের ফল পক্ষে আনার জন্য সদস্য প্রার্থী সাইফুল ইসলাম প্রিসাইডিং কর্মকর্তা আবদুল বারিককে ১০ হাজার টাকা ঘুষ দেন। হাতেনাতে ধরে পিটুনির সময় পুলিশ গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে সাত দিন এবং সদস্য প্রার্থীকে এক মাসের কারাদণ্ড দেন।
নিজে জাল ভোট প্রদান এবং জাল ভোট দিতে সহায়তার অভিযোগে কুমিল্লায় ১১ জন প্রিসাইডিং ও সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে আটক করা হয়। এর মধ্যে চৌদ্দগ্রামে এক কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ কর্মকর্তারা রাতেই নৌকার প্রতীকে সিল মেরে বাক্স ভরে রাখেন। ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলায় প্রকাশ্যে নৌকায় সিল মারার অভিযোগে প্রিসাইডিং কর্মকর্তাসহ ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
নৌকার বাইরে সিল নয়: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে প্রকাশ্যে সিল মারার দায়ে একটি কেন্দ্রে ছয়জন এজেন্টকে আটক করে পুলিশ। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন। সেখানে ভোট স্থগিত করা হয়। রায়পুরে পাঁচটি ইউপির চারটিতে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থীর বাইরে কোনো প্রার্থী না থাকায় চেয়ারম্যান পদে ভোট হয়নি। একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী থাকায় চেয়ারম্যানের ভোট হয়েছে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া ও বিজয়নগরে বেশ কিছু কেন্দ্রে ভোটারদের চেয়ারম্যান পদের ব্যালট দেওয়া হয়নি। বিজয়নগরের বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের একটি বুথে ভোটারদের শুধু সদস্য পদের ব্যালট দেওয়া হয়েছে। আর চেয়ারম্যান পদের ব্যালট নৌকার এজেন্টদের হাতে দেওয়া হয়েছে সিল মারার জন্য। আখাউড়ার মনিয়ন্দ ইউনিয়নের তুলাই শিমুল কেন্দ্রে ১১টার মধ্যে চেয়ারম্যানের ব্যালট শেষ হয়ে যায়। কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ার মালাপাড়া উচ্চবিদ্যালয় ও মনোহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকাল ১০টার মধ্যে চেয়ারম্যান পদের ব্যালট শেষ হয়ে যায়।
চট্টগ্রামের হাটহাজারীর মির্জাপুরে একটি কেন্দ্রের পাশ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, গুলিসহ চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিমকে আটক করেছে বিজিবি। পরে তাঁকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। হাটহাজারীর উত্তর মাদার্শা ইউনিয়নের বারৈয়াঘোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কেন্দ্র দখল ও সংঘর্ষের সময় নজরুল হক নামে এক পুলিশ কনস্টেবল গুলিবিদ্ধ হন। এ ছাড়া ফেনী সদরের ধলিয়া ইউনিয়নের অলিপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দুর্বৃত্তদের ছোড়া ককটেলে আহত হন পুলিশের উপপরিদর্শক মো. ইয়াসিন।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.