রাজধানীর কলাবাগানে ঘটে যাওয়া জোড়া হত্যাকাণ্ডে কম করেও ছয়জন সন্ত্রাসী অংশ নেয়। হত্যাকাণ্ডটি সম্পন্ন করতে তাদের সময় লাগে মোটের ওপর ৫ মিনিট। সোমবার রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ তথ্য জানান ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। 



তিনি বলেন, 'আমাদের ধারণা এটি টার্গেট কিলিং। হত্যাকাণ্ডে ছয়জন অংশ নেয়। প্রথমে তিনজন প্রবেশ করে। পরে জোর করে আরও তিনজন প্রবেশ করে। আর তারা তাদের মিশন শেষ করতে পাঁচ মিনিটের মতো সময় নেয়। এরপর তারা কলাবাগানের ডলফিন গলি ধরে পালিয়ে যায়। এ সময় এএসআই মুমতাজ তাদের জাপটে ধরলে তারা তাকে কোপায়। মুমতাজ সন্ত্রাসীদের মধ্যে একজনের ব্যাগ ও মোবাইল রেখে দেন।’

কী কারণে এ হত্যাকাণ্ড, এ প্রশ্নের জবাবে ডিএমপি কমিশনার বলেন, কয়েকটি সম্ভাবনা আছে। ব্যক্তিগত ও লেনদেন সংক্রান্তেও হতে পারে। জঙ্গিরাও এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে। থানা পুলিশ, ডিবি, সিআইডিসহ বিভিন্ন সংস্থার গোয়েন্দারা তদন্ত শুরু করেছেন।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু আলামত জব্দ করা হয়েছে। খুব শিগগির খুনিদের শনাক্ত করে গ্রেফতারের পর আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। তখনই হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত কারণ জানাতে পারবো।

রাজধানীর কলাবাগানে সোমবার বিকেলে দুর্বৃত্তরা ঘরে ঢুকে সমকামী ও হিজড়াদের অধিকার-বিষয়ক পত্রিকা রূপবানের সম্পাদক জুলহাস মান্নানসহ দুইজনকে খুন করে। ধানমণ্ডির কলাবাগান লেক সার্কাসের ৩৫ নম্বর বাসায় বিকেল ৫টায় এ ঘটনা ঘটে। জুলহাস মান্নান ইউএসএইডে কর্মরত ছিলেন। মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সাবেক প্রটোকল কর্মকর্তাও ছিলেন তিনি। নিহত অপরজনের নাম তনয় বলে জানা গেছে।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.