কুমিল্লার বরুড়ায় চাঞ্চল্যকর শিশু ইব্রাহিমের (৭) হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেলে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন কুমিল্লার পুলিশ সুপার মো. শাহ আবিদ হোসেন।



পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে শাহ আবিদ হোসেন জানান, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে শিশু ইব্রাহিমকে তারই চাচি হোসনেয়ারা বেগম (৩৫) শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। এ ঘটনায় চাচি হোসনেয়ারাকে গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন তিনি। ঘাতক হোসনেয়ারা বেগম বরুড়া উপজেলার শাকপুর গ্রামের আবুল বাশারে স্ত্রী। তিনি নিহত ইব্রাহিমের বড় চাচি।

পুলিশ সুপার আরো জানান, ইব্রহিমের মায়ের সাথে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে প্রায়ই ঝগড়া হতো ঘাতক হোসনেয়ারার। এরই সূত্র ধরে গত ৩১ মার্চ ইব্রাহিমকে নিজ ঘরে ডেকে নিয়ে দরজা বন্ধ করে খাটের ওপর গলা টিপে হত্যা করে। পরে মৃতদেহ খাটের নিচে লুকিয়ে রাখেন। রাতে ইব্রাহিমের লাশ ঘরের পাশে টয়লেটের সেপটিক ট্যাঙ্কে ফেলে ঢাকনা লাগিয়ে রাখেন এবং স্বজনদের নম্বরে ফোন করে নিজেই সবাইকে জানান যে, ইব্রাহীমকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

উল্লেখ্য, গত ২ এপ্রিল বরুড়ায় সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে ইব্রাহিমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত শিশুটি শাকপুর (পশ্চিমপাড়া) গ্রামের আবুল কাসেমের বড় ছেলে। আবুল কাসেম প্রবাসে থাকেন। ছেলের নিখোঁজের সংবাদ শুনে তিনি ওই দিনই বিদেশ থেকে বাড়ি আসেন এবং তার ছেলের মৃতদেহের সন্ধ্যান মেলে তারই বড় ভাইয়ের বাড়ির সেপটিক ট্যাংকে।

এ ঘটনায় বরুড়া থানায় মামলা দায়ের করার পর ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ। মামলায় ইব্রাহীমের চাচির নাম উল্লেখ না থাকলেও তদন্তের ধারাবাহিকতায় বেড়িয়ে আসে আসল রহস্য। পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে ঘাতক হোসনেয়ারা হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি স্বীকার করে জবানবন্দী দেন। পরে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করলে সেখানেও তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন। আদালত তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.