মাংস আক্ষরিক অর্থেই অতুলনীয় একটা খাবার। যিনি একবার খেয়েছেন, আজীবন তাঁর মুখে লেগে থাকবে এর স্বাদ। তবে হ্যাঁ, মজাদার এই খাবারের “সিক্রেট” রেসিপি কিন্তু বাবুর্চিরা দিতে চান না। তাই ঘরেই যতই রান্না করুন না কেন, ঠিক যেন বাবুর্চির হাতের স্বাদ মেলে না। কিন্তু একটু বুদ্ধি খাটিয়ে ভিন্ন কিছু যোগ করে একই ধাঁচের রান্নায় আনা যায় ভিন্ন স্বাদ। আজকে এমনই একটি ভিন্নধরণের রেসিপি নিয়ে আমাদের আয়োজন।


উপকরণঃ

– ১ চা চামচ লবণ
– ১ চা চামচ চিনি
– দেড় চা চামচ হলুদ গুঁড়ো
– ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়ো
– ৩/৪ কাপ করানো নারকেল ভেজে নেয়া
– ১ কেজি গরুর মাংস ছোটো করে কাটা

মসলার জন্য

– ২ টি পেঁয়াজ কুচি
– ১ ইঞ্চি আদা কুচি
– ৪ টি রসুনের কোয়া কুচি
– মরিচ ঝাল বুঝে
– ২ টেবিল চামচ নারকেল ভাজা
– ১ টেবিল চামচ তেল

তরকারীর ঝোলের জন্য

– ২ টেবিল চামচ তেল
– লবণ স্বাদমতো
– ৪ চা চামচ সয়া সস
– আড়াই চা চামচ চিনি দিয়ে ফেটানো ১ কাপ টকদই

পদ্ধতিঃ

– প্রথমে লবণ, চিনি, হলুদগুঁড়ো, মরিচগুঁড়ো একটি বড় বাটিতে সামান্য পানি মিশিয়ে পেস্টের মতো তৈরি করে নিন। এরপর এতে মাংস দিয়ে ভালো করে মেরিনেট করে নিন। এতে ২ টেবিল চামচ ভাজা নারকেল দিয়ে মাখিয়ে আলাদা করে রাখুন।
– মসলার জন্য রাখা সব উপকরণ ব্লেন্ডারে ভালো করে ব্লেন্ড করে মসৃণ মিশ্রন তৈরি করে নিন।
– একটি বড় প্যানে তেল গরম করে এতে মাংস দিয়ে ভালো করে নেড়ে ভাজা ভাজা করতে থাকুন। মাংস খানিকক্ষণ ভেজে নিয়ে আলাদা করে নামিয়ে নিন।
– একই প্যানে সামান্য তেল দিয়ে বানিয়ে রাখা মসলা ও তরকারীর ঝোলের সব উপকরণ দিয়ে ভালো করে নেড়ে মসলা কষাতে থাকুন কয়েক মিনিট। এতে ফেটিয়ে রাখা টকদই দিয়ে জ্বাল দিতে থাকুন।
– ফুটে উঠলে ভেজে রাখা মাংস দিয়ে নেড়ে নিন এবং ঢাকনা দিয়ে ঢেকে রান্না করতে থাকুন। অল্প থেকে মাঝারি আঁচে ধীরে ধীরে রান্না করবেন। মাংস সেদ্ধ হয়ে যাওয়া পর্যন্ত রান্না করুন।
– মাংস হয়ে এলে এবং ঝোল শুকিয়ে এলে নামিয়ে নিন। ব্যস, এবার গরম গরম পরিবেশন করুন সুস্বাদু এই ভিন্ন স্বাদের গরুর মাংস ভুনা।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.