বাঙালি খাদ্যের স্বকীয়তা রক্ষা হয় ভর্তায়। এই গরমে সকাল-দুপুর-রাত, তিনবেলার আহারেই ভর্তার জুড়ি মেলা ভার। আমরা প্রতিদিনই প্রায় একধরনের ভর্তা খেতে খেতে ক্লান্ত হয়ে পড়ি। তাই খাবারে যারা বৈচিত্র্য চান তাদের জন্য নতুন তিন ধরনের ভর্তা রেসিপি পরিবেশন করা হলো।



মুখরোচক ভর্তায় কাটুক সারা দিন

 ভালো লাগলে এবারের পহেলা বৈশাখে পান্তা-ইলিশের সঙ্গে এই ভর্তাগুলোও বানিয়ে দেখতে পারেন।

তিল-বাদামের ভর্তা

উপকরণ: সাদা তিল – ২ টেবিল চামচ, বাদাম – ২ টেবিল চামচ, পোস্তদানা – ১ চা চামচ, সয়াবিন তেল – ২ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ কুচি (বড়) – ১ টি, শুকনা মরিচ – ৩টি, লবণ – পরিমাণ মতো, চিনি – ১ চা চামচ, রসুন (বড়) – ৪ কোয়া।

প্রস্তুত প্রণালি:
* শুকনা তাওয়ায় সাদা তিল ও পোস্তদানা একসাথে ও ছোলা বাদাম আলাদা করে হালকা ভেজে নিয়ে আলাদা পাত্রে রাখুন।
* ফ্রাইং প্যানে তেল গরম করে শুকনা মরিচ মুচমুচে করে ভেজে তেল ছেঁকে উঠিয়ে রাখুন। একই তেলে রসুন ও পেঁয়াজ কুচি ভেজে নিন।
* এবারে পাটায় প্রথমে শুকনা মরিচ আলাদা করে ভালো করে বেটে তিল ও পোস্তদানা যতোটুকু সম্ভব মিহি করে বেটে নিন। তারপর রসুন কুচি ও পেঁয়াজ কুচি বেটে নিয়ে এর সাথে মরিচের গুড়ো, তিল ও পোস্তদানার মিশ্রণ মিশিয়ে ২/৩ বার মসৃণ করে পিষে নিন। এই ভর্তা গরম ভাত অথবা ইলিশ পোলাও বা হলুদ ভাতের সাথে পরিবেশন করুন।

নারকেলের ভর্তা

উপকরণ: কোরানো নারকেল – দেড় কাপ, শুকনা মরিচ – ৬টি, পেঁয়াজ– ৬টি, লবণ– পরিমাণ মতো, রসুন (বড়) – ৬ কোয়া, চিনি – ১/২ চা চামচ, সয়াবিন তেল – ২ টেবিল চামচ।

প্রস্তুত প্রণালি:
* প্যানে তেল গরম করে শুকনা মরিচ মুচমুচে করে ভেজে তেল ছেঁকে উঠিয়ে রাখুন।
* একই তেলে পেঁয়াজ, রসুন ও কোরানো নারকেল একসাথে মিশিয়ে বেশ খানিকটা ভাজা ভাজা করুন। লবণ ও চিনি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নেড়ে চুলা বন্ধ করে দিন।
* এবারে প্রথমে ভাজা শুকনা মরিচগুলো মসৃণ করে গুড়ো করে তার সাথে নারকেল, পেঁয়াজ ও রসুন মিশিয়ে পাটায় পিষে নিন। এই ভর্তা হলুদ ভাত অথবা ইলিশ পোলাওয়ের সাথে পরিবেশন করুন।

ক্যাপসিকাম ভর্তা
উপকরণ: মাঝারি সাইজের ক্যাপসিকাম – ৩টি, ডিম – ২টি, রসুন (বড়) – ৩ কোয়া, পেঁয়াজ কুচি – ১/২ কাপ, কাঁচামরিচ – ৪টি, ধনেপাতা কুচি – ১ মুঠ, সরিষার তেল – ২ টেবিল চামচ, চিনি – ১/২ চা চামচ।

প্রস্তুত প্রণালি:
* ক্যাপসিকাম ধুয়ে টিস্যু পেপার দিয়ে মুছে চারপাশে তেল মেখে নিন। তারপর মুখের দিকে ৩ ভাগে চিরে সেখানেও তেল মেখে আগুনে পুড়িয়ে নিন। পোড়ানোর পর একটি বাটিতে ঠাণ্ডা পানি নিয়ে ক্যাপসিকামগুলো রেখে পোড়ানো খোসাগুলো ছাড়িয়ে নিন। পানিতে দিলে অবশ্য নিজে থেকেই খোসাগুলো আলগা হয়ে যাবে। এবারে ভেতরের বিচিগুলো ফেলে হাত দিয়ে চটকে নিয়ে একপাশে রাখুন।
* ১/২ টেবিল চামচ সর্ষের তেলে পেঁয়াজ কুচি ও রসুন কুচি কিছুক্ষণ ভেজে নিয়ে এর সাথে ধনেপাতা কুচি ও কাঁচামরিচ কুচি দিয়ে আরও কিছুক্ষণ ভেজে নিয়ে ১ টেবিল চামচ সর্ষের তেল বাদে বাকি অন্যান্য সমস্ত উপকরণ ব্লেন্ডারে মসৃণ করে ব্লেন্ড করে নিন।
* কড়াইয়ে ১ টেবিল চামচ সর্ষের তেল গরম করে ক্যাপসিকাম ও ডিমের মিশ্রণ দিয়ে ভালো করে নাড়ুন। ভাজা ভাজা হয়ে ভর্তা থেকে তেল ছাড়া শুরু করলে নামিয়ে গরম ভাত, হলুদ ভাত অথবা ইলিশ পোলাওয়ের সাথে পরিবেশন করুন।

Post a Comment

বাংলাদেশ

[National][fbig1]

ঢাকা উত্তর

[Dhaka North][slider2]

ঢাকা দক্ষিন

[Dhaka South][slider2]

আন্তর্জাতিক

[International_News][gallery2]

ঢাকা উপজেলা

[Dhaka Upazila][fbig2 animated]

রাজনীতি

[political_news][carousel2]

অপরাধ

[Crime][slider2]
Powered by Blogger.