‘তোমাকে বারবার সতর্ক করার পরও তা পালন করোনি। তাই ওই ময়লা এখন থেকে মহাসড়ক থেকে তুলে নিয়ে সিটি করপোরেশনের অফিস ও তোমার বাসার সামনে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমানকে মুঠোফোনে এ কথা বলেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। 


ওবায়দুল কাদের:‘ময়লা তোমার বাসার সামনে ফেলার নির্দেশ দিয়েছি’



সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শুক্রবার সকালে গাজীপুরের ভোগড়া বাইপাস মোড়ে ফোর লেন সড়কের কাজ পরিদর্শনে যান। এ সময় সাংবাদিকেরা তাঁকে জানান, কড্ডা ও বাইমাইল এলাকায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ওপর সিটি করপোরেশনের ময়লা ফেলায় যানজটের সৃষ্টি হয়। মন্ত্রী তাৎক্ষণিকভাবে সেখান থেকে মুঠোফোনে ভারপ্রাপ্ত মেয়রকে ওই সব কথা বলেন।


এ ছাড়া আসন্ন কোরবানির ঈদের আগে ও পরে মহাসড়ককে যানজটমুক্ত রাখতে বিভিন্ন নির্দেশনা দেন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। নির্দেশনাগুলো হলো সাভার, আশুলিয়া ও গাজীপুরের পোশাক কারখানাগুলোয় ঈদের ছুটি এক দিন আগে-পরে শুরু করতে হবে। মহাসড়কের পাশে গরুর হাট বসানো যাবে না। কোরবানির পশুবাহী ফিটনেসবিহীন গাড়িগুলো ঢাকার পথে যাত্রা শুরুর আগেই থামিয়ে দেওয়া।


তৈরি পোশাকশিল্প প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) নেতাদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘ঈদের সময় গার্মেন্টসের ছুটি যেন পৃথক দিনে দেওয়া হয়। গার্মেন্টস মালিক ও বিজিএমইএ নেতাদের সাজেশন দিচ্ছি, সাভার ও আশুলিয়ার কারখানাগুলোকে এক দিন এবং গাজীপুরের কারখানাগুলোকে আরেক দিন ছুটি মঞ্জুর করা হোক। তাহলে রাস্তায় দীর্ঘ যানজটের দুর্ভোগ থেকে অনেকটা রক্ষা পাওয়া যাবে।’


ঈদের প্রস্তুতি নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘রমজানের ঈদের চেয়ে কোরবানির ঈদ অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং। কোরবানির ঈদের আগে হাইওয়ের পাশে পশুর হাট বসে। এটা একটা কঠিন সমস্যা। হাইওয়ের পাশে এবার কোনো পশুর হাট বসবে না।’


মন্ত্রী বলেন, পশুবাহী ফিটনেসবিহীন গাড়িগুলো রাস্তায় যখন বন্ধ হয়ে যায়, তখন রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হয়। তাই এ ধরনের গাড়িতে পশু বহন না করারও নির্দেশ দেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এসব বিষয় বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসন, হাইওয়ে পুলিশ ও আমাদের মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’


এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে জয়দেবপুর-এলেঙ্গা ফোর লেন প্রকল্পের পরিচালক দিলীপ কুমার গুহ, সড়ক ও জনপথের ঢাকা বিভাগীয় নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সবুজ উদ্দিন খান, গাজীপুর ট্রাফিক বিভাগের এএসপি মো. সাখাওয়াত হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।



ইতালির মধ্যাঞ্চলে গতকাল বুধবারের শক্তিশালী ভূমিকম্পের ঘটনায় নিহত ব্যক্তির সংখ্যা আজ বৃহস্পতিবার সকাল নাগাদ বেড়ে ২৪৭-এ পৌঁছেছে। আহত হয়েছে কমপক্ষে ৩৬৮ জন। দেশটির কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে হতাহতের এই তথ্য জানানো হয়।

ইতালিতে ভূমিকম্পে নিহত ২৪৭ , আহত ৩৬৮



ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকে থাকা লোকদের খোঁজে গতকাল রাতভর তল্লাশি চালিয়েছেন উদ্ধারকর্মীরা। তাঁরা জীবিত লোকদের খোঁজে সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কাজ করছেন। ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞের মধ্যে আজ ভোরেও উদ্ধারকর্মীদের বিরামহীন তৎপরতা দেখা গেছে।


দেশটির কর্মকর্তারা বলছেন, অজ্ঞাতসংখ্যক লোক ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকে আছে বলে মনে করা হচ্ছে। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে অনেকের অবস্থা গুরুতর। প্রাণহানির সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।ভূমিকম্পে দেশটির আমাত্রিচের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাম পরিদর্শন করে ইতালির প্রধানমন্ত্রী মাত্তিও রেনজি সতর্ক করে ছিলেন, হতাহত ব্যক্তির সংখ্যা বাড়তে পারে।


বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, আজ সকালে ইতালির জাতীয় ও আঞ্চলিক কর্মকর্তারা জানান, নিহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ২৪৭-এ পৌঁছেছে।


ইতালিতে ভূমিকম্পে নিহত ২৪৭ , আহত ৩৬৮



রাজধানী রোমের জনসুরক্ষা বিভাগ বলছে, স্থানীয় কর্মকর্তাদের হিসাব অনুযায়ী, রিয়েতি প্রদেশে ১৯০ জন নিহত হয়েছে। ৫৭ জন নিহত হয়েছে আসকোলি পিসেনো প্রদেশে। 

ভূমিকম্পের পর ধ্বংসস্তূপে উদ্ধার-তৎপরতা চলছে।ভূমিকম্পের পর এখন পর্যন্ত ঠিক কত মানুষ নিখোঁজ রয়েছে, তা জানাতে পারেনি দেশটির জনসুরক্ষা বিভাগ। 

বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, চার হাজারের বেশি উদ্ধারকর্মী কাজ করছেন। তাঁরা উদ্ধারকাজে ভারী যন্ত্রপাতি ব্যবহার করছেন। 

ভূমিকম্পের পর ধ্বংসস্তূপে উদ্ধার-তৎপরতা চলছে।গতকাল শত শত মানুষ শঙ্কা নিয়ে আশ্রয়শিবিরে বা বাইরে রাত কাটিয়েছে। তারা ভূমিকম্প-পরবর্তী সময়ে আরও পরাঘাতের আশঙ্কায় আছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জিওলজিক্যাল সার্ভের (ইউএসজিএস) হিসাব অনুযায়ী, ইতালিতে গতকাল আঘাত হানা ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৬ দশমিক ২।

ভূমিকম্পের পর দেশটির প্রধানমন্ত্রী রেনজি তাঁর নির্ধারিত ফ্রান্স সফর বাতিল করেছেন। সামগ্রিক পরিস্থিতি সামাল দিতে তিনি দেশে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।প্রধানমন্ত্রী রেনজি বলেন, ‘আজ কান্না ও আবেগের দিন।’

ভূমিকম্প-পরবর্তী পুনর্গঠনকাজে সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকারের কথা ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী।


হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে গতকাল বুধবার রাতে প্রায় ২৩ কেজি সোনাসহ এক যাত্রীকে আটক করেছে শুল্ক কর্মকর্তারা। আটক যাত্রীর নাম মজিদ মো. আতাউল (৩২)।


প্রায় ২৩ কেজি সোনাসহ যাত্রী আটক !!!



গতকাল রাত সাড়ে ১১টার দিকে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের একটি বিমান অবতরণের পর তাঁকে আটক করা হয়। মজিদ মো. আতাউল ওই বিমানে এসে ঢাকায় নামেন। তাঁর বাড়ি সৈয়দপুরে।


শুল্ক কর্মকর্তাদের দাবি, মজিদ মো. আতাউলের কাছ থেকে ২২৫টি সোনার বার উদ্ধার করা হয়। যার ওজন প্রায় ২৩ কেজি। মূল্য আনুমানিক ১২ কোটি টাকা।


ঢাকা কাস্টমস হাউসের সহকারী কমিশনার (প্রিভেন্টিভ) এ এইচ এম আহসানুল কবির বলেন, মজিদ মো. আতাউল ধোঁকা দেওয়ার জন্য হুইলচেয়ারে করে রোগীর বেশে আসছিলেন। 


গোপন সূত্রে খবর পেয়ে তাঁকে তল্লাশি করা হয়। এ সময় তাঁর কোমরে বিশেষভাবে তৈরি করা বেল্ট ও অন্তর্বাসের ভেতর থেকে ২২৫টি সোনার বার এবং বেশ কিছু সোনার তৈরি গয়না উদ্ধার করা হয়। যার মূল্য ১২ কোটি টাকার বেশি। তাঁর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।




আর্থিক খাতের চেয়েও বেশি চাকরির সুযোগ তৈরি করছে তথ্যপ্রযুক্তি শিল্প। নিউইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভের প্রেসিডেন্ট উইলিয়াম ডাডলি সংবাদমাধ্যম সিএনবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, স্থানীয় অর্থনীতিকে চাঙা রাখতে আগে আর্থিক খাতের যে অবদান ছিল, এখন তথ্যপ্রযুক্তি সে স্থান দখল করছে।


অর্থনীতিকে চাঙা রাখতে তথ্যপ্রযুক্তি !!!!



এর আগে নিউইয়র্কের এক অর্থনৈতিক সংকট থেকে পুনরুদ্ধারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল ওয়াল স্ট্রিট। আর এখন মুখ্য ভূমিকা পালন করছে তথ্যপ্রযুক্তি। সিকিউরিটিজ শিল্পের স্থবিরতার জন্য সৃষ্টি হওয়া শূন্যস্থান অনেকাংশে পূরণ করা সম্ভব হয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উচ্চ বেতনের চাকরির মাধ্যমে।


সিলিকন ভ্যালির মতো এতটা প্রযুক্তিনির্ভর না হলেও নিউইয়র্ক শহরের তথ্যপ্রযুক্তি খাত ক্রমেই গুরুত্ব পাচ্ছে। উইলিয়াম ডাডলির মতে, প্রযুক্তি শিল্পের যে খাতগুলো বেশি চাকরির বাজার তৈরি করছে সেগুলো হলো ই-প্রকাশনা, ই-কমার্স এবং বিজ্ঞানভিত্তিক গবেষণা ও উন্নয়ন।


নিউইয়র্কে একদিকে প্রযুক্তি শিল্পের প্রসার হচ্ছে, অন্যদিকে ওয়াল স্ট্রিটের চাকরির বাজার ক্রমেই সংকুচিত হচ্ছে। এই অবস্থার মূল কারণ হিসেবে ডাডলি বলেন, এর জন্য দায়ী অর্থনৈতিক সংকটের আগে এবং বর্ধিত নিয়মকানুনের পরে দায়িত্বহীনতা বেড়ে যাওয়া।


২০০৮ সালের আর্থিক খাতে সংকটের পর ওয়াল স্ট্রিটকে শক্তিশালী করার জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি করা হয়েছিল। তবে ফল হিসেবে যা পাওয়ার কথা ছিল, প্রাপ্তি তার চেয়ে অনেক কম।

দেশের প্রযুক্তিবাজারে বিশ্বের সবচেয়ে পাতলা ল্যাপটপ কম্পিউটার ছাড়ল এইচপি। সোমবার রাজধানীর একটি হোটেলে এ ঘোষণা দেন বাংলাদেশে এইচপির কান্ট্রি ম্যানেজার ইমরুল হোসেন ভূঁইয়া। একই সঙ্গে আরও চারটি নতুন ল্যাপটপ বাজারে ছাড়ার ঘোষণা দেন তিনি।

দেশের প্রযুক্তিবাজারে এইচপির সবচেয়ে পাতলা ল্যাপটপ !!!



বাজারে আসা পাঁচটি ল্যাপটপ হলো এইচপি স্পেক্টর ১৩, স্পেক্টর এক্স৩৬০, এনভি, প্যাভিলিয়ন ও এইচডি প্যাভিলিয়ন। এর মধ্যে এইচপি স্পেক্টর ১৩ বিশ্বের সবচেয়ে পাতলা ল্যাপটপ বলে জানান এইচপি এশিয়া ইমার্জিং কান্ট্রিজের নোটবুক বিভাগের ব্যবস্থাপক সামান্তা গৌ। তিনি বলেন, গ্রাহকেরা এখন ঝুঁকছেন পাতলা ল্যাপটপের দিকে। তাঁদের কথা বিবেচনা করেই এ ধরনের ল্যাপটপ তৈরি করা হয়েছে।


১০ দশমিক ৪ মিলিমিটার পুরু এইচপি স্পেক্টর ১৩-এ রয়েছে ১৩ ইঞ্চির মনিটর পর্দা। এর ওজন ১ কেজি ১১০ গ্রাম। এতে আছে ইন্টেল কোর আই ফাইভ বা আই সেভেন প্রসেসর, ৫১২ গিগাবাইট এসএসডি এবং ৮ গিগাবাইট র‍্যাম। এর হাইব্রিড ব্যাটারি চলে টানা ৯ ঘণ্টা। 

আর ১৩ দশমিক ৩ এবং ১৫ দশমিক ৬ ইঞ্চির এইচপি স্পেক্টর এক্স ৩৬০-এর ব্যাটারি চলবে সাড়ে ১২ ঘণ্টা। কোর আই সেভেন প্রসেসর, ৫১২ গিগাবাইট এসএসডি এবং ১৬ গিগাবাইট র‍্যামে রয়েছে এইচপি এনভি ল্যাপটপে। এর পর্দা ১৫ দশমিক ৬ ইঞ্চি। আর প্যাভিলিয়ন সিরিজের ল্যাপটপে রয়েছে কোর আই ৭ প্রসেসর ও গ্রাফিকস কার্ড, ৫১২ গিগাবাইট এসএসডি।


এই পাঁচটি ল্যাপটপের অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজ ১০।


পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরাতন কারাগারের পরিত্যক্ত জায়গায় হল নির্মাণের দাবিতে কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে আন্দোলনরত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীরা। এরই ধারাবাহিকতায় আজ বুধবার রাজধানীর পুরানো পল্টন মোড়ে অবস্থান নিয়েছে তারা। 

জবি'র শিক্ষার্থীদের অবস্থানে পল্টন মোড় অচল


বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে তারা এ অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে। এতে কার্যত অচল হয়ে পড়েছে ব্যস্ততম পল্টন মোড়। একই সঙ্গে আশপাশের এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হেয়েছে। এ বিষয়ে প্রেসক্লাব ও আশপাশের এলাকায় দায়িত্বরত শাহাবাগ থানার ভ্রাম্যমাণ পরিদর্শক শেখ আবুল বাশার বলেন, হলের দাবি আদায়ের জন্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীরা পুরানা পল্টন মোড়ে অবস্থান নিয়েছে। এতে ওই এলাকায় যানচলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে। আমরা শিক্ষার্থীদের অবস্থান কর্মসূচি পর্যবেক্ষণ করছি। তিন সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা এ আন্দোলনের অংশ হিসেবে বুধবার সকাল ৯টার দিকে কয়েক হাজার শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জড়ো হন। প্রথমে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল শেষে তারা রায়সাহেব বাজার মোড় ও তাঁতীবাজার মোড় অবরোধ করেন। এতে নর্থসাউথ রোড, ইংলিশ রোড, নবাবপুর রোড, জনসন রোড ও ধোলাইখাল সড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। এ ছাড়া তাঁতীবাজার মোড় হয়ে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের যান চলাচলও বন্ধ হয়ে পড়ে। এর আগে, গত সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রীয় কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদানের জন্য যাত্রা শুরু করলে পুলিশি বাধার মুখে পড়েন জবি শিক্ষার্থীরা। এ সময় শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিচার্জ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। এতে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী আহত হন। এর পর ওই দিন দুপুরে নতুন করে আরও দুই দিন (মঙ্গলবার ও বুধবার) ছাত্র ধর্মঘটের ডাক দেয় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

ঢাকার খবর

[Dhaka_news][fbig2 animated]

জাতীয়

[National][fbig1]

আন্তর্জাতিক বিনোদন

[International_Entertainment][carousel1]

আন্তর্জাতিক

tabsrecent/International_Politics
Powered by Blogger.